বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চিঠিতে লেখা আছে, ওই দুই কিশোরীর বয়স ১৫ বছর। নাম জেনিফার কোলম্যান ও জ্যানেট ব্ল্যাঙ্কলি। তারিখ ৯ আগস্ট ১৯৬৬। তাতে বলা হয়, চিঠি পাওয়ার পর ১৬ বছরের বেশি কিন্তু ১৮ বছরের কম বয়সী অবিবাহিত ছেলে তাঁদের উদ্দেশে চিঠি লিখতে পারবে।

স্বেচ্ছাসেবক ওই সংগঠনের সদস্য ট্রেসি মার্শাল জানান, তিনি ফেসবুকের বদৌলতে কোলম্যানের খোঁজ পেয়েছেন। ভিডিও কলের মাধ্যমে তাঁকে সেই চিঠি দেখিয়েছেনও। বোতলটি ভালোভাবে সিলগালা করা থাকায় চিঠি প্রায় শুকনো অবস্থায়ই পাওয়া গেছে।

স্কুলের পাট চুকিয়ে কোলম্যান বহু আগেই অস্ট্রেলিয়া পাড়ি দিয়েছেন। বিবিসিকে তিনি বলেন, যে জায়গায় বোতলটি খুঁজে পাওয়া গেছে, সেখান থেকে কিছু দূরেই তিনি ও তাঁর বান্ধবী চিঠি ভরা ওই বোতল ভাসিয়েছিলেন। সেটি কিছু দূর ভেসে গিয়েছিল। কিন্তু ফিরতি ঢেউয়ে হয়তো কূলের কাছে চলে আসে। তিনি জানান, বান্ধবী ব্ল্যাঙ্কলির সঙ্গে তাঁর এখন যোগাযোগ নেই। তবে চিঠি পাওয়ার খবর শুনে থাকলে অবশ্যই তিনি বিস্মিত হয়েছেন।

কোলম্যান আরও বলেন, এটা সত্য, ওই চিঠি নদীতে ভাসিয়ে তিনি কোনো বয়ফ্রেন্ড পাননি। তবে নিজের ৪৯ বছর বয়সে তিনি ভালোবাসার মানুষটির দেখা পেয়েছেন। তিনি জানান, মূলত পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে তাঁরা দুই বান্ধবী তাৎক্ষণিক চিন্তা থেকে বোতলে পুরে ওই চিঠি ভাসিয়েছিলেন।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন