বিয়েতে খরচ করা অর্থের একটা অংশ স্ত্রীর কাছে ফেরত চান স্বামী। তবে স্ত্রী এখন থাকেন বাবার বাড়িতে। শেষমেশ অর্থ আদায়ে অভিনব পথ বেছে নেন স্বামী। শ্বশুরবাড়ির আশপাশে মাইকিং করে ওই অর্থ চাওয়া শুরু করেন তিনি। আর এ কাজে ব্যবহার করা গাড়িতেও অর্থ চেয়ে টানান একটি ব্যানার।

ঘটনাটি চীনের হেনান প্রদেশের বিয়াং এলাকার। গত নভেম্বরের শেষের দিকে ঘটেছে এ ঘটনা। ২৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির নাম হোউ। গত জানুয়ারিতে লি নামের এক তরুণীর সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। দুজনের পরিচয় হয়েছিল ২০২১ সালে। পরিচয়ের তিন দিনের মাথায় বাগদান সারেন তাঁরা।

সংসার পাতার মাত্র এক মাস পর দেখা দেয় বিপত্তি। এক রাতে বাসায় ঘুমিয়ে পড়েছিলেন হোউ। ফলে কাজ থেকে ফিরে অনেক রাত পর্যন্ত বাইরে থাকতে হয় লিকে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে তুমুল ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে বাবার বাড়ির উদ্দেশে হাঁটা দেন লি।

বিয়েটা জাঁকজমকের সঙ্গেই করেছিলেন হোউ। খরচ হয়েছিল ৫ লাখ ১০ হাজার ইউয়ান (প্রায় ৭৫ লাখ টাকা)। এর বড় একটা অংশ ধার করতে হয়েছিল তাঁকে। কিছু অর্থ দিয়েছিলেন তাঁর মা–বাবা। বাকিটা আত্মীয়স্বজন। এখন তিনি স্ত্রীর কাছে ক্ষতিপূরণ বাবদ ১ লাখ ৪০ হাজার ইউয়ান চাইছেন। হোউ বলেন, ‘আমরা বিয়েতে লিকে যে গয়না দিয়েছিলাম, তার দাম বাবদ ৪০ হাজার ইউয়ান আর নগদ ১ লাখ ইউয়ান চেয়েছি।’

লির সঙ্গে ঝগড়ার পরপরই বিচ্ছেদ চেয়ে স্থানীয় একটি আদালতে আবেদন করেছিলেন হোউ। তবে আদালতে লি জানান, তাঁরা বেশ সুখেই সংসার করছিলেন। শেষ পর্যন্ত গত জুনে আদালত স্বামী হোউয়ের আবেদন খারিজ করে দেন। পরে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন তিনি। এর শুনানির জন্য এখন তাঁকে অপেক্ষা করতে হবে আগামী জানুয়ারি পর্যন্ত।

এদিকে এ ঘটনা সামনে আসার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। চীনের এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘এমন আরও ঘটনা সামনে আসবে। হেনানে বিয়ে করতে হলে কনেপক্ষকে এক লাখ ইউয়ানের বেশি দিতে হয়। ফলে ছেলে বিয়ে দিতে গিয়ে এখন প্রায়ই মা–বাবাকে ঋণ করতে হচ্ছে।’