গবেষকেরা জানান, গত ১৩ অক্টোবর পাঁচ মাস বয়সী এই পাখি আলাস্কার দক্ষিণ–পশ্চিমাঞ্চলে ইউকো–কুসকোকউইম বদ্বীপে অবস্থান করছিল। এরপর উড়াল দেয় পাখিটি।

ঠিক ১১ দিন পর ২৪ অক্টোবর পাখিটি উড়ে আসে অস্ট্রেলিয়ার তাসমানিয়া দ্বীপে। এই যাত্রায় পাখিটি কোনো বিরতি নেয়নি। একটানা উড়েছে অন্তত ১৩ হাজার ৫৬০ কিলোমিটার বা ৮ হাজার ৪৩৫ মাইল। জার্মান প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর অরনিথোলজি এই তথ্য জানিয়েছে।

বার্ডলাইফ তাসমানিয়ার আহ্বায়ক এরিক ওয়েলার বলেন, ‘এই প্রজাতির পাখি টানা উড়তে পারে। তবে এতটা পথ উড়াল দেওয়ার জন্য এই পাখি বেশ ছোট। তাই মনে হচ্ছে, পাখিটি হয়তো দলছুট হয়েছে, পথ হারিয়ে ফেলেছে। তবে এই বিষয়ে আমরা নিশ্চিত নই।’

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের তথ্য বলছে, খাবার আর বিশ্রামের জন্য বিরতি না নিয়ে কোনো পরিযায়ী পাখির একটানা সবচেয়ে দীর্ঘ পথ উড়াল দেওয়ার ঘটনা এটা। এর আগে ২০২০ সালে জিপিএস ট্র্যাকিং মেশিন শরীরে বহন করে একই প্রজাতির একটি পাখি আলাস্কা থেকে উড়াল দিয়ে নিউজিল্যান্ডে পৌঁছে রেকর্ড গড়েছিল। ওই যাত্রায় পাখিটি বিরতিহীনভাবে অন্তত ১২ হাজার ২০০ কিলোমিটার বা ৭ হাজার ৫৮০ মাইল পথ পাড়ি দিয়েছিল।