default-image

কঙ্গোতে ২ কোটি ৭০ লাখ মানুষ চরম দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি। জাতিসংঘের দুটি সংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে। সংস্থা দুটি দেশটির দুর্ভিক্ষপীড়িত মানুষের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সাহায্যের আহ্বান জানিয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থা এবং খাদ্য ও কৃষিবিষয়ক সংস্থা কঙ্গোর এ পরিস্থিতি তুলে ধরেছে। সংস্থা দুটি বলেছে, কঙ্গোতে খাদ্যাভাব প্রকট অবস্থায় পৌঁছেছে। দেশটিতে খাদ্যাভাবে থাকা মানুষের সংখ্যা অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় এখন সর্বোচ্চ।

জাতিসংঘ বলছে, সংকটের মাত্রা দিনকে দিন বাড়ছে। তবে কঙ্গোকে তার জনগণের ঘরে ঘরে খাদ্য সরবরাহের সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। বাড়তি খাদ্যও রপ্তানি করতে পারে দেশটি। কিন্তু সংঘাতের কারণে নিজেদের খাদ্য উৎপাদনের সক্ষমতা অর্জন করতে পারছে না কঙ্গো। বিশেষ করে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে সংঘাত চরম আকার নিয়েছে এবং সেখানে বেশ কয়েকটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী লাগাতার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো বলছেন, সংঘাত বাদে কোভিড-১৯ মহামারি ও অর্থনৈতিক মন্দা কঙ্গোর পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য দায়ী। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি বলে সংস্থাগুলো উল্লেখ করেছে।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন