আদেল আগার আরও বলেন, অনেক মানুষ পুলিশ স্টেশনগুলোয় আশ্রয় চাইছেন। এ সহিংসতার ঘটনায় বহু মানুষ হতাহত হয়েছেন।

সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকায় গতকাল থেকে জারি হয়েছে রাত্রিকালীন কারফিউ।

এক মাসের জন্য যেকোনো ধরনের জমায়েত ও সমাবেশ নিষিদ্ধ করে গত শুক্রবার একটি আদেশ জারি করেছেন ব্লু নিল রাজ্যের গভর্নর আহমেদ আল ওমদা।

ভূমির অধিকারের বিষয়টি তদারকির জন্য একটি বেসামরিক কর্তৃপক্ষ গঠনের অনুরোধ করেছিল হাউসা জাতিগোষ্ঠীর মানুষেরা। তবে বেরতি গোষ্ঠী সে অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করলে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। হাউসা গোষ্ঠীর এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে এএফপিকে এসব কথা বলেন।

তবে বেরতি গোষ্ঠীর এক জ্যেষ্ঠ সদস্য বলেন, হাউসা গোষ্ঠী জমিসংক্রান্ত সীমা লঙ্ঘন করায় তাঁরা প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন।

সূত্রের বরাতে আল–জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, হাসপাতালগুলোয় জরুরি ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন।

আল রোজেইরেস হাসপাতালের একটি সূত্র এএফপিকে বলেছে, হাসপাতালটিতে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার সরঞ্জাম ফুরিয়ে গেছে। আহত ব্যক্তির সংখ্যা ক্রমাগত বাড়তে থাকায় হাসপাতালে জনবল বাড়ানোর প্রয়োজন দেখা দিয়েছে।

সুদানে নিয়োজিত জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি ভলকার পেরথেস সব পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

ব্লু নিল রাজ্যের গভর্নর ওমদা টেলিভিশনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, গতকাল বিকেলে কিসান অঞ্চলে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। তবে আল রোজেইরেস এলাকায় সংঘর্ষ অব্যাহত।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন