বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গ্রিফিথস সতর্ক করে বলেন, আফগানিস্তানে ওষুধ, চিকিৎসা সরঞ্জাম ও জ্বালানি দ্রুত শেষ হয়ে যাচ্ছে। সেখানকার প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যকর্মীদের বেতন দেওয়া হচ্ছে না।

দেশটিতে মানুষের জীবন রক্ষার প্রয়োজনে তিনি তহবিল উন্মুক্ত করছেন।

গ্রিফিথস আরও বলেন, আফগানিস্তানের জনগণের প্রয়োজনে তাদের পাশে দাঁড়াতে জাতিসংঘ বদ্ধপরিকর।

এদিকে, সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে তাই ইচ্ছা প্রকাশ করেছে আফগানিস্তানের তালেবান সরকার। এ জন্য চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘকে একটি চিঠি দিয়েছে তারা।
বিবিসির খবরে বলা হয়, গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এরপর তারা দেশটিতে নতুন সরকার গঠন করেছে। তালেবান সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন আমির খান মুত্তাকি। তিনি গত সোমবার চিঠি পাঠিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিবের কাছে। এই চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেছেন, জাতিসংঘের উচ্চপর্যায়ের এ সম্মেলনে অংশ নিতে চায় তালেবান।
জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে দাঁড়িয়ে আফগানিস্তানের পক্ষে জোরালো বক্তব্য দিয়েছেন কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, তালেবানকে বর্জন করার পরিণামে বিভেদ-বিভক্তি বাড়বে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন