বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান আল থানি ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ফরেন পলিসি প্রধান জোসেফ বোরেল গত বৃহস্পতিবার দোহায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত আফগানিস্তানে আমরা যে সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলো দেখেছি, তার মধ্যে কিছু পদক্ষেপ হতাশাজনক ও দেশকে পেছনে ঠেলে দেওয়ার মতোই।’

গত মাসে মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহার, হাজার হাজার বিদেশি এবং আফগানদের সরিয়ে নিতে সাহায্য করা, নতুন তালেবান শাসকদের যুক্ত করা এবং কাবুল বিমানবন্দর চালু রাখার ক্ষেত্রে দোহা আফগানিস্তানের মূল ভূমিকা পালন করেছে।

শেখ মোহাম্মদ বলেন, ‘আমাদের তাদের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হবে এবং তাদের এ ধরনের পদক্ষেপ না নেওয়ার আহ্বান জানাতে হবে। আমরা তালেবানকে দেখানোর চেষ্টা করে আসছি যে কীভাবে মুসলিম দেশগুলো তাদের আইন পরিচালনা করতে পারে, কীভাবে তারা নারীদের বিষয়গুলো সমাধান করতে পারে। একটি উদাহরণ হতে পারে কাতার। এটি মুসলিম দেশ। আমাদের দেশ চলে মুসলিম রীতিতে। আমাদের দেশে কর্মক্ষেত্র, সরকার ও উচ্চশিক্ষায় পুরুষকে ছাপিয়ে গেছে নারীরা।’

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথার সুরেই বোরেল বলেন, ‘আফগানিস্তানে সম্প্রতি যা ঘটছে, তা সত্যই হতাশাজনক। আসুন আমরা আশা করি, নতুন করে আফগান সরকার পরিচালনা করতে পারব।’

বোরেল আরও বলেন, তালেবানদের ওপর কাতার শক্তিশালী প্রভাব ব্যবহার করে বেসামরিক লোকদের প্রতি তালেবানের আচরণ উন্নত করতে উৎসাহিত করতে পারে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন