বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে ইন্টারপোলের সাংগঠনিক কাঠামোতে আল-রাইসির পদটি আলংকারিক। তাঁর দায়িত্বের মধ্যে রয়েছে নির্বাহী কমিটির বৈঠকে সভাপতিত্ব করা। অপর দিকে সংগঠনটির দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্ব মহাসচিব ইওর্গেন স্টকের।

ফ্রান্সভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা দ্য গালফ সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটসের (জিসিএইআর) গবেষক হিবা জায়েদিন রাইসির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার ঘটনাকে বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার ও আইনের জন্য দুঃখজনক দিন বলে আখ্যায়িত করেন। জিসিএইআরের আইনজীবী সম্প্রতি জেনারেল রাইসির বিরুদ্ধে ফ্রান্স ও তুরস্কে মানবাধিকার লঙ্ঘনের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করেন।

এতে অভিযোগ করা হয়, ২০১৭ সালে আমিরাতের একজন প্রসিদ্ধ ভিন্নমতাবলম্বী নেতা আহমেদ মনসুরকে আটক করে যে নির্যাতন চালানো হয়েছিল, তার পেছনে আহমেদ নাসের আল-রাইসির হাত রয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেশের সম্মানহানির অভিযোগে আহমেদ মনসুরকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয় তখন।

চলতি মাসে জার্মানির সংসদের তিনজন সদস্য এক যৌথ বিবৃতিতে বলেছেন, জেনারেল আল-রাইসিকে নিয়োগ করা হলে ইন্টারপোলের সুনাম বিনষ্ট হবে। কিন্তু সংযুক্ত আরব আমিরাত এই আশঙ্কা নাকচ করে বলেছে, ইউএই ‘বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ দেশগুলোর একটি’ এবং সে জন্য তারা গর্বিত।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন