default-image

কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের ওপর ক্ষোভ ঝেড়েছেন ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগ্রো দুতার্তে। তিনি কমিউনিস্টদের হত্যা করে শেষ করে দিতে চান। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে এমন নির্দেশও দিয়েছেন তিনি। তাঁর এই নির্দেশের পর দেশটিতে মাদকবিরোধী অভিযানের সময়ের মতো সহিংস পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
স্থানীয় সময় গতকাল শুক্রবার সন্ত্রাস প্রতিরোধবিষয়ক এক বৈঠকে দুতার্তে বলেন, ‘কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের কোনো আদর্শ নেই। তাঁরা ডাকাতের মতো লড়াই করছেন।’
১৯৬৮ সাল থেকে ফিলিপাইনে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের লড়াই চলছে। বিশ্বে দীর্ঘদিন ধরে চলা মাওবাদী বিদ্রোহের মধ্যে এটি একটি। সেনাবাহিনী বলছে, ৫৩ বছর ধরে চলা বিদ্রোহে ৩০ হাজারেরও বেশি প্রাণহানি হয়েছে।
বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্ট ফিলিপাইনের সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে শান্তি চুক্তির চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। বিদ্রোহীদের নেতা জোস মারিয়া সিসন এখন নেদারল্যান্ডসে স্বেচ্ছানির্বাসনে রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

দুতার্তে আরও বলেন, ‘আমি পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে বলেছি কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের সঙ্গে সশস্ত্র লড়াই হলে তাঁদের হত্যা করতে। কমিউনিস্ট বিদ্রোহীরা মারা গেছেন, এমনটা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের আঘাত করে যেতে হবে।’

কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের হত্যার জন্য মাথাপিছু পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন দুতার্তে। তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বলেন, ‘তবে শুধু এটা নিশ্চিত করতে হবে যে তাঁদের মরদেহগুলো যেন পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’

ফিলিপাইনের দক্ষিণাঞ্চলের মিনদানাও দ্বীপে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে দুতার্তে বলেন, ‘মানবাধিকারের কথা ভুলে যান। এটা আমার নির্দেশ। আমি জেলে যেতে প্রস্তুত। সেটা কোনো সমস্যা নয়। কমিউনিস্টদের হত্যার নির্দেশ নিয়ে আমরা মনে কোনো দ্বিধা নেই।’

কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের সরাসরি উদ্দেশ করে দুতার্তে বলেন, ‘তোমরা সবাই ডাকাত। তোমাদের কোনো আদর্শ নেই। চীন ও রাশিয়া সবাই এখন পুঁজিবাদী।’ এসব কথা বলার পর দুতার্তে অস্ত্র সমর্পণ করলে তাঁদের চাকরি ও বাসস্থানের সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন।

কমিউনিস্ট বিদ্রোহীরা কেন লড়াই করছেন, তা বুঝতে পারছেন না বলে মন্তব্য করেন দুতার্তে। বলেন, ‘তোমরা ৫৩ বছর ধরে লড়াই করছ। এখন আমার নাতি-নাতনি আছে। এখনো তোমরা লড়াই করছ। আমি বুঝতে পারি না তোমরা কেন লড়াই করছ।’

২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সময় দুতার্তে শান্তি আলোচনার মাধ্যমে বিদ্রোহ অবসানের প্রতিশ্রুতি দেন। তবে প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরে সেনাবাহিনী ও কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাড়তে থাকে।

২০১৭ সালে সরকারি বাহিনী ও কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের মধ্যে সহিংস সংঘর্ষ হয়। দুতার্তে সে সময় শান্তি আলোচনা বাতিল করেন। পরে তিনি কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করে প্রজ্ঞাপনে সই করেন।

গতকাল দুতের্তের হুঁশিয়ারির পর দেশটিতে সাম্প্রতিক সময়ের মাদকবিরোধী অভিযানের মতো সহিংস ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সরকার ও মানবাধিকার সংস্থার হিসাবে ওই সময়ে ৬ হাজার থেকে ২৭ হাজারেরও বেশি মানুষকে হত্যা করা হয়।

সম্প্রতি ফিলিপাইনে জনসমক্ষে অথবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কমিউনিস্টদের প্রতি সহানুভূতি প্রদর্শন করায় বেশ কয়েকজন মানবাধিকারকর্মী, আইনবিদ ও চিকিৎসককে অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা হত্যা করেছে।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন