বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভয়াবহ হামলার দায় স্বীকার করে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) আফগানিস্তান শাখা আইএসকেপি। এরপর আইএসকে লক্ষ্য করে আফগানিস্তানে ড্রোন হামলা চালানোর কথা জানায় যুক্তরাষ্ট্র। গত ২৯ আগস্ট দ্বিতীয় দফায় কাবুল বিমানবন্দরের পাশে ড্রোন হামলার ঘোষণা দেয় মার্কিন সেন্ট্রাল কমান্ড। তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, সন্দেহভাজন আইএস সদস্যের গাড়ি লক্ষ্য করে হামলাটি চালানো হয়েছে, যিনি বিস্ফোরকভর্তি গাড়ি নিয়ে বিমানবন্দরে হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের সেনা কর্মকর্তারা দাবি করেন, ড্রোন হামলার পর দ্বিতীয় আরেকটি বিস্ফোরণ ঘটে। এতে সেখানে বিস্ফোরক থাকার বিষয়টি নির্দেশ করে।

তবে ‘নিউইয়র্ক টাইমস’–এর তদন্তে দেখা গেছে, ওই গাড়িতে দ্বিতীয় কোনো বিস্ফোরণ ঘটেনি। ড্রোন থেকে নিক্ষিপ্ত ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে গাড়িতে আগুন লেগে যাওয়ার চিহ্ন দেখা গেছে। সেখানে বিস্ফোরকের ধাক্কায় কোনো কিছু ভেঙে পড়ার দৃশ্য নেই।

‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ ওই ঘটনার বিস্তারিত ভিজ্যুয়াল বিশ্লেষণ করেছে। তাতে ড্রোন হামলার ক্ষয়ক্ষতিই উঠে এসেছে। সেখানে কেবল একটি বিস্ফোরণের চিহ্ন রয়েছে।
‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ ও ‘নিউইয়র্ক টাইমস’–এর তদন্তে ওই গাড়িচালকের পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে। তাঁর নাম জেমারি আহমাদি। ৪৩ বছর বয়সী এই ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার আফগানিস্তানে ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক সংস্থা নিউট্রিশন অ্যান্ড এডুকেশন ইন্টারন্যাশনালে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করতেন। ‘নিউইয়র্ক টাইমস’কে তাঁর স্বজনেরা বলেছেন, আহমাদি ও তাঁর পরিবারের আরেক সদস্য যিনি মার্কিন সেনাদের কন্ট্রাক্টর হিসেবে কাজ করেছিলেন, তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রে শরণার্থী হিসেবে আবেদন করেছিলেন।

আহমাদির পরিবার ও সহকর্মীদের তথ্য অনুযায়ী, যে সাদা সেডান আহমাদি চালাতেন, সেটি নিউট্রিশন অ্যান্ড এডুকেশন ইন্টারন্যাশনালের। ২৯ আগস্ট তিনি বিভিন্ন স্থানে থেমেছিলেন তাঁর কাজের জন্য। এর মধ্যে ছিল তাঁর বসের ল্যাপটপ নেওয়া ও সহকর্মীদের পৌঁছে দেওয়া। মার্কিন নজরদারির ড্রোন যে ভারী বস্তু তিনজনকে গাড়িতে ভর্তি করতে দেখেছিল, সেগুলো মূলত পানির কনটেইনার ছিল বলে নিউইয়র্ক টাইমস–এর তদন্তে উঠে এসেছে। কাবুলে তালেবানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর বাড়িতে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় অফিস থেকে পানি নিচ্ছিলেন আহমাদি।

২৯ আগস্ট বিকেলে আহমাদি যখন বিমানবন্দরের কাছে তাঁর বাসায় ফিরছিলেন, তখন মার্কিন ড্রোন থেকে তাঁর গাড়িতে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়। মার্কিন ড্রোন অপারেটর ওই সময় গাড়ির কাছে কেবল একজনকে দেখতে পেয়েছিলেন। কিন্তু নিউইয়র্ক টাইমস–এর প্রতিবেদনে বলা হয়, আহমাদির স্বজনদের দাবি, আহমাদি আঙিনায় পৌঁছালে তাঁর ও ভাইয়ের ছেলেরা বের হয়ে আসে এবং গাড়িতে চড়ে বসে।

কাবুলে গত ২৯ আগস্ট ওই ড্রোন হামলায় যে ১০ জন বেসামরিক আফগান নিহত হয়, তার মধ্যে সাতটি শিশু ছিল। তারা সবাই একই পরিবারের সদস্য। ‘হিন্দুস্তান টাইমস’–এর এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন