বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ক্ষমতাসীন দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর এই ঘোষণার পরপরই বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে। কেননা, ওই স্বাস্থ্যবিমার আওতায় দক্ষিণ কোরিয়ার টাকমাথার মানুষদের মাথায় চুল গজানোর চিকিৎসার খরচ সরকারি তহবিল থেকে বহন করার কথা যুক্ত রয়েছে। প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর এমন প্রতিশ্রুতি দেশটির ভোটারদের মধ্যে হাস্যরসের জন্ম দেয়।

টাকওয়ালা ব্যক্তিদের চুল গজানোর চিকিৎসার খরচ জোগানোর ঘোষণা দিতে গিয়ে লি জায়ে-মং বলেন, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রায় এক কোটি মানুষ চুল ঝরে পড়ার সমস্যায় ভুগছেন। চুল গজানোর চিকিৎসায় খরচ অনেক বেশি। অনেক সময় বিদেশ থেকে ওষুধ, চিকিৎসা সরঞ্জাম কিনে আনতে হয়। তাই অনেকেই ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও উচ্চ ব্যয়ের এই চিকিৎসা করাতে পারেন না।

লি জায়ে-মংয়ের এই ঘোষণা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশ সাড়া ফেলেছে। দেশটিতে টাকমাথার ব্যক্তিদের চুল গজানো নিয়ে কাজ করে, এমন একটি প্রতিষ্ঠান একটি ভিডিও অনলাইনে ছেড়েছে। ১৫ সেকেন্ডের ছোট্ট ওই ভিডিওতে লি জায়ে-মংকে এবারের নির্বাচনে ‘নিজের চুলের জন্য’ সেরা প্রার্থী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে।

জিয়ং-দা-ইউন নামের একজন বলেন, ‘মাথায় চুল গজানোর জন্য ছয় মাসের চিকিৎসা, ভালো মানের শ্যাম্পু ও চুলের জন্য ভালো, এমন খাবার কিনতে তিন হাজার ডলারের বেশি খরচ হয়। সরকার এই খরচ বহন করলে ভালোই হবে।’ তবে অনেকে এই প্রতিশ্রুতির সমালোচনা করেন। তাঁদের মতে, এটা ভোটারদের নিজের পক্ষে টানার সহজ ও সস্তা কৌশল।

দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারি হিসাবে, ২০২০ সালে দেশটিতে প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার মানুষ হাসপাতালে গিয়ে মাথায় চুল গজানোর চিকিৎসা নিয়েছেন।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন