বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এবারের এলডিপির দলীয় নেতা নির্বাচনে মোট প্রার্থী ছিলেন চারজন। তাঁদের মধ্যে সাম্প্রতিক জরিপে আরেক সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও বর্তমানে করোনার টিকার দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী তারো কোনো বেশ এগিয়ে ছিলেন। আজ সকালে ভোটদান শুরু হলে প্রথম দফার ভোটে কিশিদা ও কোনোর লড়াই চলছিল প্রায় সমানে সমানে। চূড়ান্ত গণনায় কিশিদা মাত্র এক ভোটে এগিয়ে থেকে প্রথম স্থান পান। তবে প্রধান দুই প্রার্থীর কেউই ৫০ শতাংশ সমর্থন নিশ্চিত করতে পারেননি। এর জের ধরে তাঁদের মধ্যে শুরু হয় দ্বিতীয় দফার লড়াই।

নির্বাচনের প্রথম পর্বে কিশিদা ও কোনোর ভোট ছিল যথাক্রমে ২৫৬ ও ২৫৫। অন্য দুই প্রার্থী সানায়ে তাকাইচি ও সেইকো নোদার পক্ষে ভোট পড়ে ১৮৮ ও ৬৩টি। অপর দিকে দ্বিতীয় দফার ভোট গ্রহণের পর দেখা যায়, কিশিদা তাঁর সমর্থন ধরে রাখার বাইরে পরাজিত দুই প্রার্থীর সমর্থকদের বড় অংশের সমর্থন নিশ্চিত করেছেন। এতে কোনোর পক্ষের ভোট ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। চূড়ান্ত গণনায় কিশিদা পেয়েছেন ২৫৭ এবং কোনোর পক্ষে পড়েছে মাত্র ১৭৭টি ভোট।

এদিকে জাপানের দ্বিকক্ষবিশিষ্ট পার্লামেন্টে এলডিপির সংখ্যাগরিষ্ঠতা বজায় থাকায় আগামী সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটির শততম প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন ফুমিও কিশিদা। পার্লামেন্টের উভয় কক্ষের বিশেষ পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন সেদিন নতুন প্রধানমন্ত্রী বেছে নেবে। আর নতুন নেতা নির্বাচিত হওয়ার পর কিশিদার সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জাপানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের নির্বাচন।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন