বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জুলিয়াস সেকিতোলেকো নামের ২০ বছর বয়সী ওই অ্যাথলেট ওসাকা জেলার ইজুমিসানো শহরে প্রশিক্ষণশিবিরটিতে দলের অন্য সদস্যদের সঙ্গে অবস্থান করছিলেন। সেখান থেকে দুপুরের দিকে নিখোঁজ হন তিনি। করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসা অবস্থায় অলিম্পিকের আয়োজন এগিয়ে নেওয়ার মুখে বিদেশি ক্রীড়াবিদের হঠাৎ করে হারিয়ে যাওয়ার এ ঘটনা ঘটল। এতে এ আসরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের নেওয়া পদক্ষেপ প্রশ্নবিদ্ধ করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জুলিয়াস সেকিতোলেকের ভারোত্তোলন প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও প্রাথমিক বাছাইয়ে তিনি উত্তীর্ণ হননি। ফলে অলিম্পিক শুরুর আগেই তাঁর দেশে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। শিবিরে অবস্থানরত দলের অন্য এক সদস্য শহরটির কর্মকর্তাদের বলেছেন, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতের দিকে তাঁকে সর্বশেষ দেখা গেছে।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসা অবস্থায় অলিম্পিকের আয়োজন এগিয়ে নেওয়ার মুখে বিদেশি ক্রীড়াবিদের হঠাৎ করে হারিয়ে যাওয়ার এ ঘটনা ঘটল। এতে এ আসরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের নেওয়া পদক্ষেপ প্রশ্নবিদ্ধ করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অলিম্পিকে অংশ নিতে বিদেশ থেকে আসা ক্রীড়াবিদ ও দলের অন্য সদস্যদের আবাসন এলাকার সীমিত গণ্ডির মধ্যেই শুধু যাওয়া–আসার অনুমতি দেওয়া হয় এবং স্থানীয় কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা তাঁদের জন্য নিষিদ্ধ। এ ছাড়া নিয়মিত করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করাতে হয় তাঁদের।

৯ সদস্যের উগান্ডার জাতীয় দল টোকিও অলিম্পিকে যোগ দিতে আসা প্রথম বিদেশি দল হিসেবে গত ১৯ জুন জাপানে এসে পৌঁছায়। তবে নারিতা বিমানবন্দরে করোনাভাইরাস পরীক্ষায় দলের একজন সদস্য পজিটিভ চিহ্নিত হওয়ায় দল থেকে বিচ্ছিন্ন করে অন্য এক সংরক্ষিত আবাসনে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। অন্য আটজন শুরু থেকেই ইজুমিসানো শহরের প্রশিক্ষণশিবিরে অবস্থান করছেন এবং পরে তাঁদের মধ্যে আরও একজন পজিটিভ চিহ্নিত হলে পুরো দলকে সাত দিনের জন্য শিবিরে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছিল।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন