বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রথমবারের মতো ওয়েন তাইওয়ান ভূখণ্ডে মার্কিন সেনা উপস্থিতির বিষয়টি নিশ্চিত করলেন।

সাক্ষাৎকারে ওয়েন তাইওয়ানে কতজন মার্কিন সেনা প্রশিক্ষক রয়েছেন, সে তথ্য দেননি। তবে তিনি বলেছেন, ‘মানুষ যতজন ভাবে, ততজন প্রশিক্ষক নেই। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা বাড়াতে বিস্তৃত সহযোগিতা বিদ্যমান।’

স্বায়ত্তশাসিত তাইওয়ান কখনো আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করেনি। চীন বহু আগে থেকেই এই অঞ্চলকে নিজেদের দাবি করে আসছে। তাইপের সঙ্গে বেইজিংয়ের সাম্প্রতিক সামরিক উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে। গত ৪০ বছরে এমনটি দেখা যায়নি।

তাইওয়ানের আকাশসীমায় সম্প্রতি রেকর্ড দেড় শতাধিক চীনা যুদ্ধবিমান মহড়া দেয়।বেইজিংকে এমন ‘উসকানিমূলক কর্মকাণ্ড’ বন্ধ করতে আহ্বান জানিয়েছে তাইওয়ান।

এর আগে তাইওয়ান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চীনের সম্পর্কও খারাপ হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, চীন যদি তাইওয়ানে আক্রমণ করে, তবে যুক্তরাষ্ট্র তা প্রতিহত করবে।

এদিকে বাইডেনের এই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বেইজিং। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, চীনের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে সমঝোতার কোনো জায়গা নেই।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন