গত এপ্রিলে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো নিজেদের ঋণখেলাপি ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কা। মারাত্মক অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে দেশকে দেউলিয়া ঘোষণা করতে বাধ্য হয় সরকার। এরই মধ্যে মঙ্গলবার আইএমএফের ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল শ্রীলঙ্কার বাণিজ্যিক রাজধানী কলম্বোয় পৌঁছায়। এদিন শ্রীলঙ্কার জন্য ১৭তম ঋণ কর্মসূচি গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের সঙ্গে তাঁরা আলোচনা করেন।

২ কোটি ২০ লাখ জনসংখ্যার দেশটি গত সাত দশকের মধ্যে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার মজুত কমে যাওয়ায় খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধসহ প্রয়োজনীয় জিনিস আমদানি করতে পারছে না দেশটি। এতে তৈরি হয়েছে জনরোষ। লোকজন রাস্তায় নেমে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষের পদত্যাগ দাবি করছেন।

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে বলেন, আগস্টে অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট পেশ করা হবে। বাজেটে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য তহবিল বাড়ানোর পাশাপাশি জনগণের জন্য আরও টেকসই পথে অর্থায়ন করা হবে। অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট সামনের পথ নির্ধারণ করবে। এর পাশাপাশি আইএমএফের ঋণ কর্মসূচি ও ঋণ টেকসইকরণের মাধ্যমে শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ফিরে আসার ভিত্তি রচিত হবে।

গত মে মাসে বিক্রমাসিংহে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছিলেন, ছয় সপ্তাহের মধ্যে তিনি অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট পেশ করে সরকারের খরচ একেবারে কমিয়ে আনবেন।

পার্লামেন্টে বিক্রমাসিংহে বলেন, ঐতিহাসিকভাবে মিত্রদেশ ভারত, জাপান ও চীনের সমর্থন প্রয়োজন। এই দেশগুলোকে সম্পৃক্ত করে শ্রীলঙ্কার সংকট মোকাবিলার জন্য দাতা সম্মেলন আয়োজনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

বিক্রমাসিংহে আরও বলেন, সংকট নিরসনে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকেও সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। তার দেশ বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে পাওয়া সাত কোটি মার্কিন ডলার দিয়ে রান্নার গ্যাস কিনবে। এই গ্যাসের জন্য দেশটিতে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ হচ্ছে।

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী আরও জানিয়েছেন, আজ বৃহস্পতিবার ভারত থেকে উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল কলম্বো সফর করবে। আগামী সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিনিধিদলের কলম্বো সফরে আসার কথা। এ ছাড়া আইএমএফের সঙ্গে তাদের আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। এ দাতা সংস্থাটির কাছে ৩০০ কোটি ডলার সাহায্য চেয়েছে সরকার।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন