সরকারি সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ জানিয়েছে, কিম জং–উন বলেছেন, দেশটি অর্থনৈতিক সমস্যার মুখোমুখি হলেও নীতিগত লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সফল হয়েছে। তিনি আরও বলেছেন, চলতি বছরের শুরুর দিকে যে পঞ্চবার্ষিক অর্থনৈতিক পরিকল্পনা উন্মোচন করেছিলেন, তা সাফল্যের দেখা পেয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ এই নেতা বলেছেন, রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতিসহ সামগ্রিক রাষ্ট্রীয় বিষয়ে ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে, যা খুবই উৎসাহজনক। এ ছাড়া রাষ্ট্রীয় অর্থনীতির স্থিতিশীল ব্যবস্থাপনা এবং কৃষি ও নির্মাণ খাতে উল্লেখযোগ্য সাফল্য প্রমাণিত হয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আগামী বছরটিও আমাদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বছর হবে, কারণ আমাদের এ বছরের মতোই বড় ধরনের লড়াই করা উচিত।’

কিম জং–উন তাঁর পরিকল্পনার মাধ্যমে অর্থনীতি ও বিদ্যুৎ সরবরাহকে চাঙা করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু জাতিসংঘের সংস্থাগুলো বলছে, দেশটিতে খাদ্য ও বিদ্যুতের ব্যাপক ঘাটতি রয়ে গেছে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি, করোনাভাইরাস মহামারি এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণে এ ঘাটতি আরও বেড়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন