বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিশুটিকে এরই মধ্যে মা-বাবার কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। ক্লিওর মা ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘আমাদের পরিবার আবার সম্পূর্ণ হলো।’

শিশু নিখোঁজের এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটক করা ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। তারা জানিয়েছে, ওই ব্যক্তির সঙ্গে ক্লিও স্মিথের পরিবারের পূর্বপরিচয় নেই।

সম্প্রতি পরিবারের সঙ্গে কোয়াবা ব্লোহোলস ক্যাম্প গ্রাউন্ডে ছুটি কাটাতে গিয়ে নিখোঁজ হয় চার বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় শিশু ক্লিও। গত ১৬ অক্টোবর আনুমানিক দিবাগত রাত দেড়টা থেকে পরদিন সকাল ছয়টার ভেতর নিখোঁজ হয় সে। ক্লিও তার ছোট বোনের দোলনার পাশে থাকা এয়ার ম্যাট্রেসের ওপর ঘুমাচ্ছিল। আর ক্লিওর মা তাঁবুর অপর একটি কক্ষে ঘুমাচ্ছিলেন। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর মেয়ের কক্ষে গিয়ে দেখেন দরজা খোলা, ক্লিও নেই সেখানে। তাকে খুঁজতে জোরেশোরে অভিযান শুরু হয়। স্থল, সমুদ্র ও আকাশপথে চালানো হয় অভিযান। পার্থ এলাকা থেকে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠানো হয়। এমনকি তার সন্ধান পেতে ১০ লাখ অস্ট্রেলীয় ডলার পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়েছিল।

ঘটনাটি আন্তর্জাতিক অঙ্গনেরও মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল। শোনা যাচ্ছিল, পুরস্কার ঘোষণার পর ভাড়াটে গোয়েন্দারা অভিযানে যোগ দিতে ওই অঞ্চল ভ্রমণ করেছেন।

তবে ১৮ দিন পর ক্লিওর জীবিত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া ও সুস্থ থাকার খবরে স্থানীয় লোকজনের মনে স্বস্তি ফিরেছে।

কারনারভন শায়ারা প্রেসিডেন্ট এডি স্মিথ অস্ট্রেলিয়ার টু জিবি রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘১৮ দিন ধরে আমরা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে ছিলাম। এ মুহূর্তে আমি খানিকটা আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছি।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনও স্বস্তি প্রকাশ করে টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘দারুণ, স্বস্তির সংবাদ!’

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন