ইন্দোনেশিয়া বিশ্বের শীর্ষ পাম তেল রপ্তানিকারক দেশ। গত ২৮ এপ্রিল অপরিশোধিত পাম তেল রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দেয় দেশটির সরকার। অভ্যন্তরীণ রান্নার তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় দেশটির সরকার এ সিদ্ধান্ত নেয়। রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় বিশ্ববাজারে তেলের দামে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

বিক্ষোভকারীদের হাতে দাবি আদায় সম্বলিত বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড ছিল। একটি প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, মালয়েশিয়ার কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে, অপরদিকে ইন্দোনেশিয়ান কৃষকেরা ভুগছেন। পাম তেল উৎপাদনে মালয়েশিয়া বিশ্বে দ্বিতীয়। ইন্দোনেশিয়া পাম তেল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় বর্তমানে মালয়েশিয়া বাজার দখলের চেষ্টা করছে।

পাম তেলের ফল বোঝাই একটি ট্রাকের পাশ দিয়ে বিক্ষুব্ধ কৃষকেরা একটি র‌্যালি নিয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক মন্ত্রণালয়ের বাইরে অবস্থান নেন। সরকারি নীতিমালা বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়টির বেশ প্রভাব রয়েছে।

এক বিবৃতিতে ক্ষুদ্র কৃষকদের সংগঠন জানিয়েছে, পাম তেল রপ্তানি বন্ধের ঘোষণার পরপরই পাম ফলের দাম ৭০ শতাংশ কমে গেছে। দেশটির আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ এ দাম নির্ধারণ করে।

অপর দিকে স্বাধীন কৃষকেরা সরকার নির্ধারিত দাম পায় না। তাঁরা মিলমালিক ও মধ্যস্বত্বভোগীদের মাধ্যমে উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে। ক্ষুদ্র কৃষকদের সংগঠনের তথ্য অনুযায়ী, নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ২৫ শতাংশ স্বাধীন কৃষকদের কাছ থেকে পাম ফল কেনা বন্ধ করে দিয়েছে মিলগুলো।

কৃষকেরা বলেন, দাম কমে যাওয়ায় অনেকেই ফসল উৎপাদনে আগ্রহী হবেন না। পাশাপাশি বন্দরগুলোতে জায়গা না থাকায় মিলগুলো নতুন করে পাম তেল ফল কিনছে না।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন