default-image

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে মেয়ের ক্ষমতায় আসার বিষয়ে জল ঢেলে দিয়েছেন। তাঁর মেয়ে সারা দুতার্তে-কারপিও বর্তমানে দাভাও সিটির মেয়র হিসেবে সফলতার স্বাক্ষর রেখেছেন। সম্প্রতি এক জনমত জরিপে দেখা গেছে, আগামী বছরে দেশটিতে হতে যাওয়া নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে তাঁর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে।  

এর পরিপ্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার দুতার্তে বলেন, প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব কোনো নারীর জন্য নয়। কারণ, তাঁদের আবেগ–অনুভূতি পুরুষের চেয়ে ভিন্ন।

মহাসড়কের এক প্রকল্পের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দুতার্তে বলেন, ‘আমার মেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে না। আমি তাকে না করেছি। কারণ, আমি জানি আমাকে যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে, তাকেও যেতে হবে। ‘এটি কোনো নারীর জন্য নয়। আপনারা জানেন নারী ও পুরুষের আবেগ–অনুভূতি পুরোপুরি ভিন্ন। এখানে এলে আপনি বোকা বনে যাবেন...এটাই দুঃখের কথা।’

তবে ফিলিপাইনে এরই মধ্যে দুজন নারী প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁরা হলেন গ্লোরিয়া ম্যাকাপাগাল আরোয়ো এবং কোরোজন একুইনো।

বিজ্ঞাপন
default-image

৭৫ বছর বয়সী দুতার্তের দুষ্টু–মিষ্টি মন্তব্য অনেক সময়ই আপত্তিকর, যৌনবিষয়ক, নারীবিদ্বেষী হলেও তাঁর দপ্তর এসব মন্তব্যকে ‘নিরীহ রসিকতা’ বলে উল্লেখ করা হয়ে থাকে। তবে দেশটিতে নারী ভোটারদের মধ্যে তাঁর বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে।

তবে এবারের তাঁর এই মন্তব্যের বিষয়ে মানবাধিকার সংগঠন কারাপাতানের নেত্রী ক্রিস্টিনা পালাবে বলেন, নারীরাও পুরুষের মতো যেকোনো কাজ করতে পারেন। তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো...নারীর স্বার্থের প্রসঙ্গ এলেই সবকিছু আটকে যায়।’

দুতার্তে-কারপিও দুই দশক ধরে বলিষ্ঠতার সঙ্গে মেয়রের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। তিনি গ্রেপ্তারে বাধা দিলে প্রকাশ্যে অপরাধীকে গুলি করতে পুলিশকে অনুমতি দিয়েছেন। প্রেসিডেনশিয়াল দায়িত্ব তাঁর জন্য কিছু নতুন কিছু নয়। কারণ, বাবার বিয়ে অবৈধ হয়ে যাওয়ার পর তিনি ফার্স্ট লেডির দায়িত্ব পালন করেন।

গত বৃহস্পতিবার দুতার্তে–কারপিও রয়টার্সকে বলেন, তিনি তাঁর বাবাকে এ বিষয়ে অনাগ্রহের কথা জানিয়েছেন। তিনি তাঁর বাবাকে মোবাইলে খুদে বার্তা পাঠিয়ে বলেছেন, ‘দেশের মানুষ যদি এটি বিশ্বাস করতে না চায় তাহলে আমার কিছু করার নেই। সবাই প্রেসিডেন্ট হতে চায় না, আমি তাদের একজন।’

কারপিও আরও বলেন, ‘সবাই আমার ওপর যে বিশ্বাস ও আস্থা রেখেছে আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমার প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করা মানে পৃথিবী শেষ হয়ে গেছে, তেমনটা নয়।’

তবে দেশটির বামপন্থী আইনপ্রণেতাদের একটি গ্রুপ আকবায়ান পার্টিলিস্ট এক বিবৃতিতে গতকাল শুক্রবার বলেছে, দুতার্তের শাসনকাল মানেই হলো ‘অদক্ষ, দুর্নীতিগ্রস্ত, খুনি সরকার’। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘সারা দুদার্তে-কারপিওর প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন করা উচিত হবে না। তিনি নারী বলে নির্বাচন করা উচিত হবে না—বিষয়টা এমন নয়; মূল বিষয় হলো, তাঁর বাবা দুতার্তেকে জনগণের বিরুদ্ধে অপরাধ করার অপরাধে বিচারের আওতায় আনার মতো যথার্থ প্রেসিডেন্ট তিনি (দুদার্তে-কারপিও) হবেন না।’

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন