স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার রাতে এমনই একটি স্টেশনে দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর ক্রেতারা জানতে পারেন জ্বালানি শেষ। এ কথা শোনার পরই তাঁরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। এ সময় সেনাসদস্যদের সঙ্গে বিক্ষুব্ধ জনতার সংঘর্ষ শুরু হয়। একপর্যায়ে ফাঁকা গুলি ছোড়েন সেনারা।

কলম্বোর ৩৬৫ কিলোমিটার উত্তরে ভিসুভামাদু এলাকার একটি জ্বালানি স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। শ্রীলঙ্কার সেনা মুখপাত্র নিলান্থা প্রেমারত্নে এএফপিকে বলেন, ২০ থেকে ৩০ জন একটি সামরিক যান লক্ষ্য করে পাথর ছুড়লে গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় চার বেসামরিক নাগরিক ও তিন সেনাসদস্য আহত হয়েছেন। অস্থিরতা ঠেকাতে এই প্রথম ফাঁকা গুলি ছুড়েছে সেনাবাহিনী। এর আগে গত এপ্রিলে রামবুক্কানা শহরে পেট্রল ও ডিজেল বিতরণ নিয়ে সংঘর্ষ ছড়ালে পুলিশের গুলিতে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন।

পুলিশ বলছে, সপ্তাহ শেষে তিন জায়গায় মোটরযানের চালকদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়েছে। এর মধ্যে একটি সংঘর্ষের ঘটনায় অন্তত ছয়জন কনস্টেবল আহত হন এবং সাতজন মোটরযানের চালক গ্রেপ্তার হয়েছেন।

জ্বালানি সংরক্ষণে সপ্তাহের শুরুতে দেশটিতে সাপ্তাহিক ছুটি এক দিন বাড়িয়ে তিন দিন করা হয়। এ সত্ত্বেও গত শুক্রবার পেট্রল স্টেশনগুলোয় দীর্ঘ লাইন দিয়ে মানুষকে অপেক্ষায় থাকতে দেখা যায়। অনেক মোটরসাইকেলচালকের দাবি, পেট্রলের জন্য কয়েক দিন ধরে অপেক্ষায় আছেন তাঁরা।

পেট্রল ও ডিজেলের তীব্র সংকটের কারণে শ্রীলঙ্কার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সব বিভাগ, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে কাল সোমবার থেকে সীমিত পরিসরে যান চলাচলের নির্দেশ দিয়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন