বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শ্রীলঙ্কার গণমাধ্যমবিষয়ক মন্ত্রী ডুলাস আলহাপ্পেরুমা গত বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গণমাধ্যম নিয়ে বিদ্যমান বিধিমালায় কিছু সংশোধনী আনার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল। যা হোক, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বা সার্বিকভাবে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করার পরিবর্তে সর্বোত্তম কোন পন্থায় এ ইস্যু নিয়ে কাজ করা যায়, সে বিষয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলোচনা করবে সরকার।

ভুল তথ্যের পরিবেশন ও ভুল প্রতিবেদনের ফলে প্রায়ই লোকজনের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। কিন্তু এটি মোকাবিলায় কঠোর আইন প্রণয়ন করাটা কোনো সমাধানের পথ নয়। তাই কঠোর আইন প্রণয়ন না করে কীভাবে এ ইস্যু মোকাবিলা করা যায় সে বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানোই শ্রীলঙ্কা সরকারের এখনকার নীতি।

গণমাধ্যমবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে এডিটরস গিল্ড অব শ্রীলঙ্কা ও দ্য ব্রডকাস্টিং গিল্ডের মাধ্যমে গণমাধ্যমের নৈতিকতা বিষয়ে কিছু নিয়মনীতি চালু আছে। মন্ত্রী আরও বলেন, তিনি চান সবাই একত্রে বসে প্রতিবেদন তৈরির নৈতিকতা বিষয়ে একটা ঐকমত্যে পৌঁছাক।

মন্ত্রী বলেন, ভুল তথ্যের পরিবেশন ও ভুল প্রতিবেদনের ফলে প্রায়ই লোকজনের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। কিন্তু এটি মোকাবিলায় কঠোর আইন প্রণয়ন করাটা কোনো সমাধানের পথ নয়। তাই কঠোর আইন প্রণয়ন না করে কীভাবে এ ইস্যু মোকাবিলা করা যায় সে বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানোই শ্রীলঙ্কা সরকারের এখনকার নীতি।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন