দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাবাহিনী ওই বিবৃতিতে আরও বলেছে সাউথ পিয়ংগান প্রদেশের কাইচন থেকে সকাল পৌনে নয়টার দিকে স্বল্পপাল্লার দুটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, দেশটি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা বজায় রেখেছে। নজরদারি ও সতর্কতা জোরদার করেছে।

পিয়ংইয়ং ২০টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার একদিন পর দক্ষিণ কোরিয়ার জলসীমায় এ ক্ষেপণাস্ত্রগুলো নিক্ষেপ করা হলো।

জাপানের সরকার দেশটির উত্তরাঞ্চলের বাসিন্দাদের ঘরে থাকতে সতর্ক করেছে। বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতেও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

জাপানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়াসুকাজু হামাডা বলেছেন, ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের দ্বীপপুঞ্জ পার হয়নি। তবে জাপান সাগরের ওপর দিয়ে অদৃশ্য হয়ে গেছে।

ওয়াশিংটন ও সিউল ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ নিয়ে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনকে বারবার সতর্ক করেছে।

২০১৭ সালের পর দ্বিতীয়বারের মতো জাপানের ওপর দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া। দেশটির ব্যালিস্টিক ও পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার ওপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।