শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ এখন ৫২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। গত এপ্রিলে শ্রীলঙ্কা ঘোষণা দিয়ে জানায়, তারা আপাতত ঋণ শোধ করতে পারবে না। এর মধ্য দিয়ে দেশ স্বাধীনের পর প্রথমবারের মতো দেশটি আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করে। এরপরে নতুন ঋণ পেতে তৎপরতা শুরু করে দেশটির সরকার।

বৈশ্বিক অন্যান্য ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানের মতো বিশ্বব্যাংকেরও দ্বারস্থ হয়েছিল শ্রীলঙ্কার সরকার। তবে বিশ্বব্যাংক বলেছে, শ্রীলঙ্কায় চলমান সংকট নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন। কিন্তু দেশটির সরকার অর্থনীতির অচলাবস্থা নিরসনের জন্য এখন যেসব সংস্কার আনা জরুরি তা কার্যকরের পদক্ষেপ না নেয়, তাহলে তাদের ঋণ দেওয়া হবে না।

সংস্থাটি বলেছে, ‘একটি যথাযথ সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি কাঠামো না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বব্যাংক শ্রীলঙ্কাকে নতুন অর্থায়নের পরিকল্পনা করছে না। এ জন্যে গভীর কাঠামোগত সংস্কার প্রয়োজন। অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক সংকটের জন্য দায়ী মূল কাঠামোগত বিষয় মোকাবিলার কথা ভেবেই সংস্কার আনতে হবে।’

এদিকে বেল আউটের (অর্থনৈতিক পুনর্গঠন) জন্য আরেক ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গে শ্রীলঙ্কার সরকারের আলোচনা চলছে। তবে আইএমএফ থেকে ঋণ পাওয়ার প্রক্রিয়া দীর্ঘ। ঋণ পেতে কয়েক মাস এমনকি বছরও লেগে যেতে পারে। তবে এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার থেকে উভয় পক্ষের মধ্যে আবারও আলোচনা শুরু হয়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন