আদালতের রুলের পর বয়স কমানোর বিষয়টি আইনসভায় তুলতে দ্রুত একটি খসড়া প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। তবে আগামী বছর অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচনের আগে এ আইন পাস করা কঠিন হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন তিনি।

জেসিন্ডা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে বয়স কমানোর পক্ষে। আমার সরকারের জন্য এটা কোনো বিষয়ই নয়। কিন্তু কোনো ইলেক্টোরাল আইন অনুমোদন করাতে হলে ৭৫ শতাংশ সংসদ সদস্যের সমর্থন থাকা দরকার।’

ভোট দেওয়ার বয়স কমানোর দাবিতে তরুণদের সংগঠন ‘মেক ইন ১৬’ বেশ কিছুদিন ধরে আন্দোলন করছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার ভোট দেওয়ার বয়স দুই বছর কমাতে রুল দেন সুপ্রিম কোর্ট।

বর্তমানে ব্রাজিলসহ গুটিকয়েক দেশে ১৬ বছরে ভোটাধিকার সুবিধা আছে। বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ মনে করেন, ভোট দেওয়ার বয়স কমালে তরুণদের রাজনীতিতে অংশ নেওয়ার প্রবণতা বাড়বে। তবে দেশভেদে এর প্রভাবে পার্থক্য দেখা যায়।