এক বিবৃতিতে ইউন বলেন, ‘এটি সত্যিই হৃদয়বিদারক ঘটনা। সিউলের কেন্দ্রে এ রকম একটি দুর্ঘটনা ও বিপর্যয় ঘটেছে, যা ঘটা উচিত ছিল না।’

গতকাল শনিবার রাতে ইটাওন এলাকায় হ্যালোইন উৎসব উদ্‌যাপনকালে ভিড় বেড়ে যায়। একটি সরু গলির মধ্যে পদদলনের এ ঘটনা ঘটে। উদ্ধারকারী কর্মকর্তারা বলছেন, মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।

ইয়ংসান ফায়ার স্টেশনের প্রধান চোই সাং-বিয়ম বলেছেন নিহত ১৫১ জনের মধ্যে ১৯ জন বিদেশি নাগরিক রয়েছেন। তাঁরা চীন, ইরান, উজবেকিস্তান ও নরওয়ের নাগরিক। তিনি আরও বলেন, আহত ৮২ জনের মধ্যে ১৯ জনের অবস্থা গুরুতর।

করোনা মহামারির কারণে তিন বছর পর সিউলে প্রথম হ্যালোইন উৎসব হলো। দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার করোনা বিধিনিষেধ ও সামাজিক দূরত্ব তুলে নেওয়ার পরে হ্যালোইন উৎসব হলো।

দক্ষিণ কোরিয়ায় রাত সাড়ে ১০টার কিছু আগে এই পদদলনের ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন বলছেন, রাত গভীর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিড়ের মধ্যে বিশৃঙ্খলতা বাড়ছিল। পুলিশ ভিড় সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিল।

ফায়ার স্টেশনের প্রধান চোই বলেন, হতাহত ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকে নারী। তাঁদের বয়স ২০ বছরের মধ্যে। তিনি বলেন, যাঁরা পদদলিত হয়েছেন তাঁদের বেশির ভাগই সরু গলির মধ্যে ছিলেন।

এক নারী বলেন, তাঁর মেয়ে এক ঘণ্টারও বেশি সময় আটকে ছিল। পরে তাঁরা তাকে টেনে বের করেন।