কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, কয়েদিদের চিঠি আদান-প্রদানের জন্য কারাগারে স্থাপিত ডাক ঘরে বোমাগুলো বিস্ফোরিত হয়েছে। পরে ওই এলাকা থেকে অবিস্ফোরিত অবস্থায় আরও একটি বোমা উদ্ধার করা হয়। বোমাটি প্লাস্টিকের ব্যাগে মোড়ানো ছিল।
এখন পর্যন্ত কেউ হামলার দায় স্বীকার করেনি।

মিয়ানমারের সবচেয়ে বড় কারাগার ইনসেইন। এখানে প্রায় ১০ হাজার বন্দী আছেন। তাঁদের বেশির ভাগই রাজনৈতিক বন্দী।

তাঁদের মধ্যে শিক্ষার্থীদের নেতা কো জেমসের মা-ও আছেন। গত জুনে মিয়ানমারের সেনা কর্তৃপক্ষ কো জেমসকে গ্রেপ্তার করে। বুধবার তাঁকে খাবার দিতে কারাগারে এসেছিলেন তাঁর মা।

শতাব্দী পুরোনো ইনসেইন কারাগার নিয়ে মানবাধিকার সংগঠনগুলো সমালোচনা করে থাকে। তাদের অভিযোগ, এ কারাগারে বন্দীদের সঙ্গে কঠোর ও মানবেতর আচরণ করা হয়।