আল–জাজিরার প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষাপ্রধান জেনারেল শাভেন্দ্র সিলভা বলেছেন, সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশ দেশের সংবিধানকে সম্মান দেখাবে। তিনি আরও বলেছেন, ‘নতুন প্রেসিডেন্ট শপথ না নেওয়া পর্যন্ত সামনের পথচলাটা কেমন হবে, তা নির্ধারণ করে আজকের রাতের মধ্যে আমাদের ও সাধারণ জনগণকে জানাতে আমরা রাজনৈতিক নেতাদের অনুরোধ করছি।’

শ্রীলঙ্কায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পুনরুদ্ধারে দেশটির সেনাবাহিনীকে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে নির্দেশ দেওয়ার পরই প্রতিরক্ষাপ্রধান এসব কথা বলেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও অন্যান্য রাষ্ট্রীয় ভবন ছেড়ে যেতে বিক্ষোভকারীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি তাঁদের পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করতে অনুরোধ জানান।

অর্থনৈতিক সংকটের মুখে গণ–আন্দোলনের মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার রাতে দেশ ছেড়ে পালান শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। তিনি একটি সামরিক উড়োজাহাজে করে মালদ্বীপে গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন অভিবাসন কর্মকর্তারা। সেখান থেকে তিনি সিঙ্গাপুরে যেতে পারেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। সেখানে পৌঁছে তিনি পদত্যাগের বিষয়টি পার্লামেন্টের স্পিকারকে জানাতে পারেন।

বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্য শানাকিয়ান রাসানামিকাম বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে জনগণের মধ্যে আস্থা তৈরি করতে হলে প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এমন কাউকে নিয়োগ দেওয়া উচিত হবে না, যাঁরা আগে সরকারের অংশ ছিলেন।

শ্রীলঙ্কা ব্যাপক অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সংকটের প্রেক্ষাপটে গত মার্চ মাসে দেশটির হাজারো মানুষ রাজপথে নেমে আসেন। তাঁরা লাগাতার বিক্ষোভ দেখিয়ে আসছেন।

গত শনিবার শত শত বিক্ষোভকারী গোতাবায়ার বাসভবনে ঢুকে পড়েন। এদিন রাতে পদত্যাগের ঘোষণা দেন গোতাবায়া।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন