গোতাবায়া রাজাপক্ষে
ফাইল ছবি

গতকাল মঙ্গলবার রাতে দেশ ছেড়ে পালান শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। তিনি একটি সামরিক উড়োজাহাজে করে মালদ্বীপে গেছেন। সেখান থেকে তিনি সিঙ্গাপুরে যাবেন।

আজ বুধবার শ্রীলঙ্কার গণমাধ্যম ডেইলি মিররের এক খবরে এ কথা বলা হয়েছে।

ডেইলি মিররের খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট মালদ্বীপে পালিয়ে গেছেন। মালদ্বীপের সূত্রগুলো বলছে আজ দিনের শেষের দিকে গোতাবায়া সেখান থেকে সিঙ্গাপুরে যাবেন।

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে পালিয়ে মালদ্বীপে গেছেন গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাতে। এদিকে গোতাবায়াকে মালদ্বীপে পালিয়ে যেতে ভারত সহায়তা করেছে বলে যে খবর বেরিয়েছে, তা অস্বীকার করেছে দেশটি। শ্রীলঙ্কায় ভারতীয় দূতাবাসের টুইটার পেজে বলা হয়েছে, এ খবর ‘প্রকৃতভাবে ভিত্তিহীন ও অনুমানমূলক’।

গত শনিবার প্রেসিডেন্টের বাসভবন ছাড়ার পর গোতাবায়া রাজাপক্ষে কোথায় ছিলেন, তা জানা যাচ্ছিল না। বুধবার জানা গেল, গতকাল রাতে তিনি শ্রীলঙ্কা ছেড়ে মালদ্বীপে পৌঁছেছেন। প্রেসিডেন্টের পদ থেকে আজ বুধবার পদত্যাগপত্র শ্রীলঙ্কায় পাঠাবেন বলে জানিয়েছেন দেশটির স্পিকার।

গত মার্চ থেকে শ্রীলঙ্কায় চলছে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ। শনিবার শত শত বিক্ষোভকারী প্রেসিডেন্ট গোতাবায়ার বাসভবনে ঢোকেন। এরপর এদিন রাতে পদত্যাগের ঘোষণা দেন গোতাবায়া। ঘোষণা অনুযায়ী আজ তাঁর পদত্যাগের কথা। এর আগে তিনি দেশ ছাড়লেন।

পদত্যাগের আগেই গত সোমবার রাতে গোতাবায়া রাজাপক্ষে দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। তবে বিমানবন্দরে অভিবাসন কর্মকর্তারা তাঁকে আটকে দেন। পরে তিনি নৌপথে পালানোর চেষ্টা করেন। গোতাবায়ার ভাই সাবেক অর্থমন্ত্রী বাসিল রাজাপক্ষেও এদিন পালানোর চেষ্টা করেন।

শ্রীলঙ্কায় ক্ষমতাসীন কোনো প্রেসিডেন্টকে গ্রেপ্তারের সুযোগ নেই। গোতাবায়া আশঙ্কা করছিলেন, প্রেসিডেন্ট পদ ছাড়ার পর তাঁকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে। এ জন্য তিনি সোমবার রাতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে দেশত্যাগের চেষ্টা করেন। তবে অভিবাসন কর্মকর্তারা তাঁকে আটকে দেন। গোতাবায়া, তাঁর স্ত্রীসহ পরিবারের ১৫ সদস্য আরব আমিরাতের চারটি ফ্লাইট ধরতে পারেননি। পরে বন্দরনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পাশের সামরিক ঘাঁটিতে ফিরে যান তাঁরা।