বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের একজন মুখপাত্র এ বিষয়ে বলেন, ‘কর্তৃপক্ষের কঠোর হস্তক্ষেপের কারণে কাবুলে চলাচল করা আমাদের ফ্লাইট আজ থেকে (বৃহস্পতিবার) স্থগিত করা হয়েছে।’

কাবুলের বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্সির বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, উড়োজাহাজে করে কাবুল থেকে পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে যেতে এখন চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে। যাত্রীদের কাছ থেকে কমবেশি ২ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার করে নিচ্ছে পিআইএ। আগে এই টিকিটের দাম ছিল ১২০ থেকে ১৫০ ডলার।

এর আগেও টিকিটের দাম নিয়ে তালেবানের সতর্কতার মুখে পড়েছিল পিআইএ ও আফগানিস্তানের বিমানসেবা প্রতিষ্ঠান ‘কাম এয়ার’। টিকিটের দাম কমানো না হলে ফ্লাইট বন্ধ করে দেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয় দেশটির পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। পাশাপাশি কোনো অনিয়ম দেখলে যাত্রীদের তা জানানোর আহ্বানও করা হয়।

এদিকে পিআইএর ফ্লাইট স্থগিতের খবরে শঙ্কায় রয়েছে আফগানিস্তানের অনেক বাসিন্দা। এমনই একজন আবদুল্লাহ। দেশত্যাগে ইচ্ছুক আফগানদের জন্য পিআইএর ফ্লাইট একটি উপায় ছিল বলে উল্লেখ করেছেন ২৬ বছর বয়সী এই চাকরিজীবী। তিনি বলেন, ‘আমাদের এই ফ্লাইটগুলোর জরুরিভাবে প্রয়োজন। সীমান্ত বন্ধ রয়েছে। এখন যদি বিমানবন্দরও বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে আমাদের অবস্থা হবে খাঁচায় বন্দী থাকার মতো।’

গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখলের মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ যায় তালেবানের হাতে। এর আগের দিন থেকেই কাবুলের হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ব্যবহার করে আফগানিস্তান ত্যাগ করা শুরু করে বিদেশি নাগরিক ও হুমকির মুখে থাকা আফগানরা। ৩১ আগস্ট পর্যন্ত লক্ষাধিক মানুষ আফগানিস্তান ছাড়ে। পরে সেপ্টেম্বরে এসে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে যায় বিমানবন্দরটি।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন