প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় দখলে নেওয়া বিক্ষোভকারীরা আনন্দ–উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন। চিৎকার–চেঁচামেচি করছেন। তাঁরা সেখানে সেলফি তুলছেন।

বিক্ষোভকারীরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভেতরে ঢোল বাজিয়ে, চিৎকার করে নানান স্লোগান দিচ্ছেন। তাঁরা স্লোগানে স্লোগানে বলছেন, ‘রনিল পাগল’, ‘গোতাবায়া পাগল।’

বিক্ষোভকারীদের অনেকেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ভবনের বারান্দায় অবস্থান নিয়েছেন। তাঁরা সেখানে দাঁড়িয়েও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন। বিক্ষোভকারীদের মধ্যে কেউ কেউ বারান্দায় শিখা জ্বালিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ঢুকে পড়ার আগে ফটকের বাইরে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের কয়েক ঘণ্টা ধরে সংঘর্ষ হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ঢুকে পড়া ঠেকাতে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ করে কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে পুলিশ। তারা জলকামান ব্যবহার করে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিক্ষোভকারীরা ঢুকে পড়ার আগে শ্রীলঙ্কাজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করেন রনিল বিক্রমাসিংহে। অনির্দিষ্টকালের জন্য এই জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

অর্থনৈতিক সংকটের মুখে গণ–আন্দোলনের মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার রাতে দেশ ছেড়ে পালান শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। তিনি একটি সামরিক উড়োজাহাজে করে মালদ্বীপে গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন অভিবাসন কর্মকর্তারা।

গোতাবায়ার দেশ ছেড়ে পালানোর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা জারি করা হয়।

এ ছাড়া দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশজুড়ে অনির্দিষ্টকালের কারফিউ জারি করা হয়েছে। রাজধানী কলম্বোতেও কারফিউ বলবৎ থাকবে। ক্রমবর্ধমান বিক্ষোভ থামাতে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

উচ্ছৃঙ্খল আচরণে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করার জন্য দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী রনিল।

প্রধানমন্ত্রী রনিলকে শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার। আর প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া আজ পদত্যাগ করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। স্পিকার বলেছেন, আগের ঘোষণা অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট আজই পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেবেন।

রনিল আগেই ঘোষণা দিয়েছেন যে, একটি সর্বদলীয় সরকার গঠিত হলে তিনি পদত্যাগ করবেন। একটি সর্বদলীয় অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছেছে দেশটির বিরোধী দলগুলো।

বিক্ষোভকারীরা রনিলেরও পদত্যাগ দাবি করছেন।

শ্রীলঙ্কা অভূতপূর্ব অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এই সংকটের প্রেক্ষাপটে গত মার্চ মাসে দেশটির হাজারো মানুষ রাজপথে নেমে আসেন। তাঁরা লাগাতার বিক্ষোভ দেখিয়ে আসছেন।

গত শনিবার শত শত বিক্ষোভকারী গোতাবায়ার বাসভবনে ঢুকে পড়েন। এদিন রাতে পদত্যাগের ঘোষণা দেন গোতাবায়া।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন