আজ সকালে তাইওয়ান প্রণালির সেই অনানুষ্ঠানিক সীমানা দিয়ে চীনের একাধিক যুদ্ধবিমানের সঙ্গে সঙ্গে চীনের রণতরিকেও মহড়া চালাতে দেখা যায় বলে জানিয়েছে ওই সূত্র। তিনি চীনের এমন তৎপরতাকে খুবই উসকানিমূলক হিসেবে অভিহিত করেন। কারণ, সাধারণত এই সীমানা অতিক্রম করে না চীন-তাইওয়ান।

ওই সূত্র জানায়, আজ সকাল থেকে চীনা যুদ্ধবিমান ধারাবাহিকভাবে তাইওয়ান প্রণালিতে মহড়া চালাচ্ছে। মাঝেমধ্যে অল্প সময়ের জন্য মধ্যবর্তী সীমানাও ‘স্পর্শ’ করে। পরে তাইওয়ান প্রণালির চারপাশে অন্য অংশ ঘিরেও মহড়া চালায়। এ সময় প্রণালির অন্যদিকে তাইওয়ানের যুদ্ধবিমানের মহড়া চালাতে দেখা যায়।

তাইওয়ান স্বশাসিত। তাদের নিজেদের সরকার আছে। তাইওয়ান নিজেদের স্বাধীন ও সার্বভৌম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে মনে করে, কিন্তু তাইওয়ানকে নিজেদের অবিচ্ছেদ্য অংশ মনে করে চীন। চীনের শাসন মেনে নিতে তাইওয়ানকে সামরিক ও রাজনৈতিক চাপ দিয়ে আসছে বেইজিং। কিন্তু তাইওয়ান চীনের এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে নিজেদের রক্ষার কথা বলে। চীনা প্রভাবমুক্ত হতে তাইওয়ানকে অর্থ ও অস্ত্র সহায়তা দিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। এ বিষয়ে চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধ রয়েছে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন