গুগলের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ল্যাম্বডা নিয়ে ব্লেক লেমোইনের দাবির কোনো ভিত্তি নেই। বিষয়টি পরিষ্কার করতে কয়েক মাস ধরে গুগল ব্লেকের সঙ্গে কাজ করেছে। কিন্তু ব্লেক চাকরির নিয়ম ও নিরাপত্তানীতি ভঙ্গ করেছেন।

ল্যাম্বডা প্রসঙ্গে গুগলের দাবি, এটি যুগান্তকারী প্রযুক্তি। এটি অবাধে কথাবার্তা চালিয়ে যেতে পারে। চ্যাটবট তৈরির জন্য তারা প্রোগ্রাম হিসেবে এটি কাজে লাগায়।
গত মাসে ব্লেক যখন দাবি করেন, ল্যাম্বডার মধ্যে মানুষের মতো অনুভূতি ও সচেতনতা দেখা যাচ্ছে। তাঁর এ মন্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়। এ নিয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা খাতের বিশেষজ্ঞরা আলোচনা শুরু করেন।

ব্লেক লেমোইন গুগলের রেসপনসিবল এআই টিমে কাজ করতেন। তিনি ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেছিলেন, তাঁর কাজ ছিল গুগলের প্রযুক্তি কোনো বৈষম্যমূলক বা ঘৃণ্য বক্তব্য ব্যবহার করছে কি না, তা পরীক্ষা করা। তিনি দাবি করেন, ল্যাম্বডা আত্মসচেতনতা দেখিয়ে ধর্ম, আবেগ ও ভয় বিষয়ে কথোপকথন চালিয়ে যেতে পারে।

এ থেকে তিনি ধারণা করেন, ল্যাম্বডার অভূতপূর্ব কথোপকথনের দক্ষতার পেছনে সংবেদনশীল মন রয়েছে। কিন্তু তাঁর দাবি গুগল প্রত্যাখ্যান করে এবং প্রতিষ্ঠানের গোপনীয়তা নীতি লঙ্ঘনের জন্য তাঁকে ছুটিতে রাখা হয়। ব্লেক লেমোইন তখন প্রমাণ হিসেবে ল্যাম্বডার সঙ্গে তাঁর ও আরেক ব্যক্তির কথোপকথনের বিষয়টি সামনে আনেন।

গুগলের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দায়িত্বশীল এআইয়ের বিকাশকে খুবই গুরুত্বসহ নেয় তারা। প্রতিষ্ঠানের প্রযুক্তি নিয়ে কোনো কর্মকর্তার উদ্বেগ বিস্তৃতভাবে পর্যালোচনা করা হয়। ল্যাম্বডা নিয়ে ১১ বার পর্যালোচনা করা হয়েছে।

তবে গুগলের এআই প্রযুক্তির সচেতনতার বিষয়টি ব্লেক লেমোইন একা সামনে আনেননি। এর আগে গত মাসে গুগলের আরেক কর্মকর্তা ব্রিটিশ সাময়িকী ইকোনমিস্টকে একই কথা বলেছিলেন।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন