বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ টিকা তৈরিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে কাজ করছে। অমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয়টির পক্ষ থেকে আলাদা করে বিবৃতিও দেওয়া হয়েছিল। এতে বলা হয়েছিল, এমন কোনো প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি যে অমিক্রনের বিরুদ্ধে তাদের টিকা কার্যকর নয়। কিন্তু তাদের টিকা কতটা কার্যকর, সেটাও এখনো জানা হয়নি তখন। তখন বলা হয়েছিল, যদি প্রয়োজন হয়, তবে তাদের টিকায় পরিবর্তন আনা হবে।

তবে গত সপ্তাহে একটি গবেষণা প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। এতে বলা হয়েছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার অ্যান্টিবডি ককটেল ইভ্যুশেল্ড অমিক্রন প্রতিরোধে সক্ষম। এ নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যের ফিন্যান্সিয়াল টাইমস। অক্সফোর্ডের গবেষক দলের প্রধান স্যান্ডি ডগলাসের বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছিল তারা।

প্রথম যে দেশগুলোয় অমিক্রন পাওয়া গিয়েছিল, সেই দেশগুলোর মধ্যে বতসোয়ানা ও ইসোয়াতিনিতে গবেষণা শুরু করেছিল অ্যাস্ট্রাজেনেকা। এরপর প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে গতকাল বলা হলো, অমিক্রনের জন্য টিকা তৈরিতে তারা অক্সফোর্ডের সঙ্গে প্রাথমিক ধাপের কাজ শুরু করেছে। তবে অক্সফোর্ডের পক্ষ থেকে এখনো কিছু বলা হয়নি।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন