গত শনিবার রয়টার্সের সাংবাদিকেরা বুচা শহর পরিদর্শন করেছেন। তাঁরা বলেন, একটি গির্জা এলাকায় শনাক্ত হওয়া গণকবর এখনো উন্মুক্ত অবস্থায় আছে। সেখানে দেখা গেছে, লাল কাদামাটি ভেদ করে মানুষের হাত–পা বের হয়ে আছে।

এরই মধ্যে নতুন স্যাটেলাইট চিত্র প্রকাশ করেছেন মাক্সার টেকনোলজিস। তারা বলেছে, সেন্ট অ্যান্ড্রু অ্যান্ড পেয়ারভজভান্নোহো অল সেইন্টস গির্জায় গণকবরের সন্ধান পাওয়া যায় গত ১০ মার্চ। আর গত ৩১ মার্চ দেখা গেছে, গির্জা এলাকার দক্ষিণ–পশ্চিম অংশে প্রায় ৪৫ ফুট দীর্ঘ পরিখাযুক্ত একটি সমাধিস্থল রয়েছে।

রয়টার্স বলছে, মাক্সার প্রকাশিত স্যাটেলাইট চিত্রগুলো তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করা যায়নি। শনিবার রয়টার্সের সাংবাদিকেরা যে গির্জা পরিদর্শন করেছেন, সেটি আর মাক্সার প্রকাশিত স্যাটেলাইট চিত্রের গির্জাটি একই কি না, তাও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। গতকাল ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি বলেছে, তাদের সাংবাদিকেরাও বুচা শহর পরিদর্শন করেছেন। শুধু বুচা শহরের একটি রাস্তাতেই কমপক্ষে ২০টি মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেছেন তাঁরা। মরদেহগুলোর সবার পরনে ছিল বেসামরিক পোশাক।

বুচার মেয়র আনাতোলি ফেদোরুক বলেন, ‘এসব মানুষকে মাথার পেছন দিক থেকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।’ তবে রুশ বাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ে ঠিক কতজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে, তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।

গতকাল ইউক্রেন অভিযোগ করেছেন, রুশ বাহিনী বুচা শহরে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে। রাশিয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। উল্টো একে ইউক্রেনের উসকানিমূলক আচরণ বলে উল্লেখ করেছে তারা।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন