রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ সাংবাদিকদের জানান, রুশ বাহিনী ইউক্রেনে হামলা চালিয়ে দেশটির ১৪টি সামরিক বিমানঘাঁটি ধ্বংস করে দিয়েছে। একই সঙ্গে ধ্বংস করা হয়েছে ইউক্রেনের ১৯টি সামরিক কেন্দ্র (কমান্ড পোস্ট), ২৪টি এস-৩০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রব্যবস্থা এবং ৪৮টি রাডার স্টেশন ধ্বংস করা হয়েছে। ইউক্রেনের নৌবাহিনীর আটটি জাহাজে আঘাত হেনেছে রুশ বাহিনী। সব মিলিয়ে ৮০০ সামরিক স্থাপনা ধ্বংস করা হয়েছে।

২৪ ফেব্রুয়ারি ভোরে ইউক্রেনে হামলা শুরুর নির্দেশ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রুশ সেনারা প্রথম দিনই ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের উপকণ্ঠে পৌঁছে যায়। দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিনেও বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চলেছে। বেসামরিক এলাকাতেও হামলা হয়েছে।

কোনো প্রতিরোধ ছাড়াই ইউক্রেনের মেলিতোপোল শহর দখলে নিয়েছে রাশিয়ার সেনারা। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আজ এমন কথা জানিয়েছে।

রুশ হামলার প্রথম দিনে ইউক্রেনের অন্তত ১৩৭ সামরিক-বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। আজ ইউক্রেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ভিক্তর লায়শোকো জানান, তৃতীয় দিনে এসে এ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯৮। এর মধ্যে শিশুও রয়েছে।

এক শহর দখলে নিল রাশিয়া, লাল পতাকা দিয়ে স্বাগত জানাল কয়েকজনএদিকে বিবিসি জানিয়েছে, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী তাদের ফেসবুক পেজে দাবি করেছে, তারা আগ্রাসনে জড়িত ৩ হাজার ৫০০ রুশ সেনাকে হত্যা ও প্রায় ২০০ জনকে বন্দী করেছে। আরও দাবি করা হয়েছে, এখন পর্যন্ত রাশিয়ার ১৪টি যুদ্ধবিমান, ৮টি হেলিকপ্টার ও ১০২টি ট্যাংক ধ্বংস করা হয়েছে। তবে এসব দাবির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি বিবিসি।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন