বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১৯৮৬ সালের ২৬ এপ্রিল চেরনোবিলে অবস্থিত পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে। সে সময় বিদ্যুৎকেন্দ্রটি পরিচালনা করত সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন। ওই ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে মৃত্যু হয় ৩১ জনের।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অপর এক টুইটে বলেছে, ১৯৮৬ সালে চেরনোবিলে সবচেয়ে বড় প্রযুক্তিগত বিপর্যয় দেখেছে বিশ্ব। যদি রাশিয়া যুদ্ধ চালিয়ে যায়, তাহলে ২০২২ সালেও একই ঘটনা ঘটতে পারে।

এখন পর্যন্ত রাশিয়ার হামলায় ইউক্রেনের ৪০ সেনাসদস্য ও ১০ বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে কিয়েভ। পাল্টা জবাবে রাশিয়ার ছয়টি বিমান ও একটি হেলিকপ্টার ভূপাতিত করা হয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটি।

এ ছাড়া রাশিয়া-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা একটি শহরে হামলা করার পর তা প্রতিহত করার সময় প্রায় ৫০ জন ‘দখলদার রুশ’ নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী। রুশ হামলায় উদ্ভূত পরিস্থিতি সামাল দিতে মার্শাল ল জারি করেছেন ভলোদিমির জেলেনস্কি।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন