বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঘটনার পরদিন সকালেই পুলিশ ওই আততায়ীকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর সরকারি কৌঁসুলি বলেন, ৪৯ বছর বয়সী মারিও নামের ওই আততায়ী একজন সফটওয়্যার ডেভেলপার। অভিযুক্ত অপরাধী মারিও অপরাধ স্বীকার করে বলেন, তিনি পেট্রলপাম্পে কাজ করা সেই যুবককে আগে থেকে চিনতেন না।

ওই আততায়ী আরও জানান, করোনা মহামারির কারণে দেওয়া যাবতীয় বিধিনিষেধ ও নিয়ম তিনি মানেন না। এসব স্বাস্থ্যবিধি প্রত্যাখ্যান করে তিনি বলেন, এই মহামারি তাঁর কাছে একটি বোঝা বলে মনে হয়।

সরকারি কৌঁসুলি কাই ফুহরমান আরও জানান, অভিযুক্ত ব্যক্তির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্টগুলো পরীক্ষা করে দেখা গেছে, তিনি অনেক আগে থেকেই করোনার বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতেন। তিনি উগ্র ডানপন্থী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

এর আগে ইডার-ওবারস্টাইন শহরে বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। টিকাকেন্দ্রগুলোতে অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটেছে। সাংবাদিকদের ভয়ও দেখানো হয়েছে।

২০১৯ সালে করোনা মহামারির শুরু থেকেই ‘কয়ার ডেঙ্কার’ বা ‘বিকল্প চিন্তা’ নামের একটি গ্রুপ করোনাকালীন বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে মিছিল–মিটিং ও প্রচারণা চালিয়ে আসছে। এ গ্রুপের অধিকাংশ সদস্যই কট্টরপন্থী রাজনীতির অনুসারী। ইডার-ওবারস্টাইন শহরের এই আততায়ীও এ গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত। তিনি অবৈধ অস্ত্র ব্যবহারকারী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন