বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যও আলাদাভাবে পুতিনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে যাচ্ছে। তবে ঠিক কখন এ সিদ্ধান্ত আসতে পারে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলা হয়নি।

এর আগে এই সপ্তাহে এ নিয়ে দ্বিতীয়বার ইইউ রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল। এসব নিষেধাজ্ঞায় রাশিয়ার অভিজাত ব্যক্তি ছাড়াও ব্যাংকিং ব্যবস্থার ৭০ শতাংশ কার্যক্রম বন্ধের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ইইউর বৈঠক শেষে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বায়েরবক বলেন, ‘আমরা এখন নিষেধাজ্ঞার তালিকায় প্রেসিডেন্ট পুতিন ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভরভের নাম অন্তর্ভুক্ত করেছি।’

একজন জ্যেষ্ঠ ইইউ কূটনীতিক জানান, ইউরোপে রুশ নেতাদের খুব বেশি সম্পদ না থাকলেও ব্যক্তিগতভাবে তাঁদের বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপ তাৎপর্যপূর্ণ।

শুক্রবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি ইউরোপকে দ্রুত পদক্ষেপ এবং মস্কোর ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছেন। তবে একই সঙ্গে তিনি পশ্চিমা মিত্রদের বিরুদ্ধে কিয়েভে রুশ হামলা নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ করেছেন।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন