বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সামরিক উদ্দেশ্যে ডলফিনকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার রাশিয়ার পুরোনো ইতিহাস রয়েছে। তারা জলজ স্তন্যপায়ীকে কোনো ক্ষতিকর বস্তু উদ্ধার বা শত্রুপক্ষের ডুবুরিদের প্রতিহত করতে ব্যবহার করেছে।

সিভাস্তোপোল নৌঘাঁটি রাশিয়ার সেনাবাহিনীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এটি ক্রিমিয়ার দক্ষিণে অবস্থিত। রাশিয়া ২০১৪ সালে ইউক্রেন থেকে ক্রিমিয়া দখল করে নেয়। ইউএসএনআইর বিশ্লেষণ অনুযায়ী অনেক রুশ জাহাজ এখানে নোঙর করে। জায়গাটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার সীমানার বাইরে হলেও সমুদ্রের নিচ থেকে হামলার ঝুঁকি রয়েছে।

কেবল রাশিয়া নয়, ইউক্রেনও সিভাস্তোপোলের কাছে একটি অ্যাকুয়ারিয়ামে ডলফিনকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। ১৯৯০-এর দশকে সোভিয়েত ইউনিয়ন যুগে চালু হওয়া ওই প্রকল্প এত দিন গুরুত্বহীন ছিল। স্নায়ুযুদ্ধের সময়, যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়ন উভয়ই ডলফিন প্রকল্প চালু করে, যা পানির নিচে মাইনের মতো কোনো বস্তু থেকে প্রতিধ্বনিত হওয়া শব্দ শনাক্ত করতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রও নিজস্ব ডলফিন ও সি লায়ন বাহিনী গড়ে তুলতে কমপক্ষে ২ কোটি ৮০ লাখ ডলার ব্যয় করেছে। ডলফিন ও সি লায়ন উভয়কেই প্রশিক্ষণ দিয়ে যুদ্ধের সময় সম্ভাব্য সাহায্যে কাজে লাগানো যায়।

ইউক্রেনের নৌবাহিনী ২০১২ সালে সিভাস্তোপোল প্রকল্পটি নতুন করে চালু করে। কিন্তু ২০১৪ সালে ক্রিমিয়া আক্রমণের সময় স্তন্যপায়ী প্রাণীগুলো রাশিয়ার হাতে ধরা পড়ে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন