পোপ ফ্রান্সিস বলেন, ‘আমরা সবাই ঈশ্বরের সন্তান। আর ঈশ্বর তাঁর প্রত্যেক সন্তানকেই সমান ভালোবাসেন। তাই সমকামিতা কোনোভাবেই অপরাধ হতে পারে না।’

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের যেসব ক্যাথলিক বিশপ সমকামীদের বিরুদ্ধে প্রণীত বিভিন্ন আইন সমর্থন করেন, তাঁদের উদ্দেশে পোপ ফ্রান্সিস বলেছেন, এলজিবিটিকিউদেরও চার্চে স্বাগত জানান।

মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান ডিগনিটি ট্রাস্টের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের ৬৭টি দেশে আইন করে সমকামিতাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১১টি দেশে সমকামিতার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

এর আগে পর্নোগ্রাফি নিয়ে কথা বলে আলোচনার জন্ম দিয়েছিলেন পোপ ফ্রান্সিস। গত অক্টোবরে ভ্যাটিকান সিটিতে এক অনুষ্ঠানে অনলাইনে পর্নোগ্রাফি দেখার ঝুঁকি সম্পর্কে যাজক ও নানদের সতর্ক করে ৮৬ বছর বয়সী পোপ বলেন,‘পর্নো দেখার পাপ অনেক লোকের মধ্যে আছে... এমনকি যাজক এবং নানদেরও। সেখান থেকে শয়তান প্রবেশ করে। পরিশুদ্ধ হৃদয়ে কখনো পর্নোগ্রাফি বা অশ্লীলতা জায়গা নিতে পারে না।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও ডিজিটাল দুনিয়ায় বিচরণ করা সম্পর্কে পোপ ফ্রান্সিস আরও বলেন, ‘এসব মাধ্যমে বেশি সময় নষ্ট করা উচিত নয়।’ তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘ফোন থেকে এগুলো সরিয়ে ফেলুন।’