তীর্থযাত্রীদের নিয়ে ওই সফরের আয়োজন করেছিল ব্রাদারহুড অব সেন্ট জোসেফ নামের একটি দল। ওই দলে তিনজন ধর্মযাজক ও ছয়জন নান (সন্ন্যাসিনী) ছিলেন। তাঁরা বসনিয়ার মেদজুজর্জি শহরে একটি ক্যাথলিক উপাসনালয়ে যাচ্ছিলেন।

পোল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ওই বাসের যাত্রীরা পোল্যান্ডের বাসিন্দা। তাঁরা সবাই প্রাপ্তবয়স্ক। এদিকে দুর্ঘটনার তদন্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন পোল্যান্ডের বিচারমন্ত্রী ও প্রসিকিউটর জেনারেল।

বাস দুর্ঘটনার পর প্রাথমিকভাবে ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। পরে আহতদের হাসপাতালে নেওয়া হলে আরও একজনের মৃত্যু হয়। ক্রোয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডাভোর বজিনোভিক বলেছেন, আহত ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এদিকে দুর্ঘটনায় হতাহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ প্লেঙ্কোভি। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ক্রোয়েশিয়ার জরুরি সেবা যতটা সম্ভব সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন