ওদেসায় নিযুক্ত আল-জাজিরার প্রতিবেদক জন হেনড্রেন বলেছেন, ২ কোটি ৫০ লাখ টন শস্য আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য ও বিশ্বের অন্যান্য দেশে পাঠানো হবে। জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় গত ২২ জুলাই মস্কো ও কিয়েভের মধ্যে স্বাক্ষরিত শস্য রপ্তানি চুক্তির আওতায় শস্যগুলো পাঠানো হচ্ছে।

হেনড্রেন আরও বলেন, ‘ইউক্রেন ছাড়ার অপেক্ষায় থাকা এ জাহাজগুলোর জন্য একটি নিরাপদ পথ নিশ্চিত করা হয়েছে।’ শস্য রপ্তানির প্রস্তুতি দেখতে শুক্রবার জেলেনস্কি ওদেসা অঞ্চলের চেরনোমরস্ক বন্দর পরিদর্শন করেছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সাংবাদিকদের জেলেনস্কি বলেন, যুদ্ধ শুরুর পর থেকে এই প্রথম জাহাজে চালান ওঠানো হচ্ছে।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউক্রেনের নেতার আশার বাণী সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত কোনো জাহাজ ইউক্রেনের বন্দর ছেড়ে যায়নি।

হেনড্রেন বলেন, জাহাজগুলো নোঙর করার ক্ষেত্রে যুদ্ধরত দেশগুলোর একে অপরের প্রতি যথেষ্ট পরিমাণে আস্থা থাকা জরুরি। বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রিত অঞ্চল দোনেৎস্কের একটি আটককেন্দ্রে শুক্রবারের হামলার ঘটনায় সে আস্থা আরও কমে গেছে।

রাশিয়ার অভিযোগ, যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ‘হিমার্স’ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে ইউক্রেন ওই কারাগারে হামলা চালিয়েছে। ওই আটককেন্দ্রে ইউক্রেনীয় সেনাদের রাখা হয়েছিল।

তবে ওই হামলা চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছে কিয়েভ। তাদের দাবি, আন্তর্জাতিক আইনের সঙ্গে সংগতি রেখে তারা বেসামরিক অবকাঠামোতে হামলা থেকে বিরত থাকে।

ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি উল্টো দাবি করেছেন, রাশিয়াই ইচ্ছাকৃতভাবে ওই হামলা চালিয়েছে।

আল-জাজিরার প্রতিনিধি হেনড্রেন বলছেন, ওই হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫০ দাঁড়িয়েছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন