ম্যার্কেল বলেন, তখনকার ধারণাটি ছিল খুব স্পষ্ট, ‘ক্ষমতার রাজনীতিতে তোমার প্রভাব শেষ।’ সাবেক এ চ্যান্সেলর বলেন, পুতিন শুধু ক্ষমতাকেই বিবেচনায় নেন। হামলা শুরুর আগে ইউক্রেন সীমান্তে বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে ব্যাপক সেনা ও সামরিক সরঞ্জাম জড়ো করেছিলেন পুতিন।

এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে অনেকেই যুক্তি দিয়ে থাকেন, ম্যার্কেল ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্য নেতাদের ক্রেমলিনের বিরুদ্ধে আরও কঠোর পন্থা অবলম্বন করা উচিত ছিল।

ম্যার্কেল বলেন, মিনস্ক শান্তি আলোচনায় ইউক্রেন বিষয়ে তাঁর যে অবস্থান ছিল, এর ফলে রুশ বাহিনীর বিরুদ্ধে আরও ভালোভাবে আত্মরক্ষার জন্য কিয়েভ প্রস্তুতির সময় পেয়েছিল।