গত জুনে ইউক্রেনকে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির হিমার্স সরবরাহে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র। বলা হয়, এ রকেট উৎক্ষেপণব্যবস্থা ব্যবহার করে বড় দূরত্বে রকেট ছোড়া যাবে। ৭০ কোটি ডলার মূল্যের নতুন অস্ত্রসহায়তা প্যাকেজের আওতায় কিয়েভকে এ রকেট উৎক্ষেপণব্যবস্থা সরবরাহ করে ওয়াশিংটন। এ ব্যবস্থা ৮০ কিলোমিটার দূরত্ব পর্যন্ত থাকা লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে। তবে শর্ত দেওয়া হয়, রাশিয়ার ভেতরে হামলা চালাতে এটা ব্যবহার করবে না ইউক্রেন।

ওই সময় মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক নিবন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, ‘কূটনীতির মধ্য দিয়ে ইউক্রেনে রুশ অভিযান শেষ হবে। তবে আলোচনার টেবিলে ইউক্রেনকে সর্বোচ্চ মনোবল দিতে যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করতে হবে। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমরা ইউক্রেনকে আরও বেশি করে অত্যাধুনিক রকেট–ব্যবস্থা ও যুদ্ধাস্ত্র সরবরাহ করব, যা আরও সুনির্দিষ্ট করে ইউক্রেনের যুদ্ধক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্যে আঘাত হানবে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রুশ অভিযান শুরুর পর ইউক্রেনে হাজারো মানুষ নিহত হয়েছেন। বাস্তুচ্যুত হয়েছেন লাখো মানুষ। পশ্চিমা দেশগুলো ইউক্রেনকে এম৭৭৭ হুইটজারসহ দীর্ঘ পাল্লার অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে। যুদ্ধের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে আটটি অত্যাধুনিক রকেট–ব্যবস্থা পেয়েছে ইউক্রেন।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন