শোকযাত্রার সময় রানির কফিন একনজর দেখতে আগে থেকেই রাস্তার পাশের বেষ্টনীর ওপারে ভিড় করেছেন মানুষ।

ব্রিটিশ রাজপ্রাসাদ বাকিংহাম প্যালেসের বাইরে একটি মল ঘেঁষে যে নিরাপত্তাবেষ্টনী দেওয়া হয়েছে, এর একেবারেই সামনের দিকের একটি জায়গা পেয়েছেন মেলানি ওডে। ৬০ বছর বয়সী এ শিক্ষক গতকাল রোববার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ওখানে আসেন। তাঁবু খাটিয়ে দুই মেয়ে ও নাতি-নাতনিদের নিয়ে সেখানেই রাত কাটিয়েছেন তিনি।

মেলানি জীবনে একবারই ইতিহাসের অংশ হওয়ার, শ্রদ্ধা জানানোর এমন সুযোগ এসেছে। বলেন, ‘এমন ঘটনা আগে দেখিনি। আমাকে আসতে হলো। ঘটনাটাই এমন যে না এসে থাকা গেল না।’

মেলানি মনে করেন, রানিকে শ্রদ্ধা জানাতে এতটুকু অন্তত তিনি করতে পারেন।
রাতভরই বিভিন্ন জায়গা থেকে সেখানে এসে মানুষ জড়ো হয়েছেন। কেউ এসেছেন ট্যাক্সিতে, আবার কেউ এসেছেন ট্রেনে চড়ে। ভিড় সামলাতে অতিরিক্ত ট্রেনসেবা চালু করা হয়েছে।

শোকযাত্রা অনুষ্ঠানের রাস্তার পাশে যেসব মানুষ অবস্থান নিয়েছেন, তাঁদের কেউ কালো পোশাক পরে ভাবগাম্ভীর্য বজায় রাখছেন। আবার কেউ পতাকার আদলে পোশাক পরে গড সেভ দ্য কুইন গাইছেন।

বিভিন্ন বয়সের মানুষের উপস্থিতি সেখানে দেখা গেছে। কেউ আবার হুইলচেয়ারে করেও সেখানে এসেছেন।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন