default-image

আরব্য উপন্যাসের আলাদিনের চেরাগ (প্রদীপ) অনেকের কাছেই পরিচিত। জাদুকরী সেই চেরাগে ঘঁষা দিলেই দৈত্য বেরিয়ে এসে পূরণ করে মানুষের ইচ্ছা। আরব্য উপন্যাসের এই গল্প অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে টেলিভিশন সিরিয়াল, চলচ্চিত্র। গল্পের সেই চেরাগ যে বাস্তবে খুঁজে পাওয়া যাবে না, সেটাও সবার জানা। কিন্তু ভারতের একজন চিকিৎসক হয়তো সে দলের নন। আর তাই তো তাঁর কাছে সেই ‘আলাদিনের চেরাগ’ বিক্রি করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র।

অবশ্য ওই চিকিৎসক পরে ঠিকই বুঝতে পেরেছেন, তিনি আলাদিনের আশ্চর্য চেরাগ কিনতে গিয়ে ঠকেছেন। সংশ্লিষ্ট থানায় তিনি মামলাও করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের মিরাটে। প্রতারণার শিকার ওই চিকিৎকের নাম এল এ খান। তাঁর দাবি, প্রদীপটি কিনতে প্রলুব্ধ করতে প্রতারকেরা তাঁর সামনে ‘দৈত্যও’ হাজির করেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

এনডিটিভি জানায়, মামলায় ওই চিকিৎসক অভিযোগ করেছেন, এক নারীকে চিকিৎসা করার সময় প্রতারক চক্রটির সদস্যদের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। তখন তাঁরা ওই অসুস্থ নারীকে তাঁদের মা বলে পরিচয় দেন। তিনি বলেন, ‘ওই নারীকে চিকিৎসা করাতে আমি তাঁদের বাড়িতে যাতায়াত শুরু করি। বেশ কয়েকবার যাতায়াতের পর তাঁরা আমাকে এক সাধুবাবার খোঁজ দেন।’ তিনি আরও বলেন, একদিন তিনি সেই সাধুবাবার সঙ্গে দেখা করেন। ওই সময় তিনি ধ্যানে মগ্ন ছিলেন। একপর্যায়ে চক্রটি তাঁর কাছে একটি চেরাগ (আলাদিনের প্রদীপ) বিক্রির প্রস্তাব দেয়। এর দাম হাঁকে তারা দেড় কোটি রুপি। ওই চিকিৎসক প্রাথমিকভাবে ৩১ লাখ রুপি পরিশোধ করেন। তিনি বলেন, ‘প্রতারকেরা আমাকে জানিয়েছিল, চেরাগটি আমাকে ধনী বানিয়ে দেবে।’

ওই চিকিৎসক তাঁর অভিযোগে আরও উল্লেখ করেন, ‘একদিন আমার সামনে “আলাদিন” হাজির হয়। আমি সে সময় জানতাম না, ওই ব্যক্তি কে। পরে বুঝতে পারি, ওই প্রতারক চক্রেরই এক সদস্য আলাদিনের পোশাক পরে হাজির হয়েছিলেন আমার সামনে।’

মিরাটের একজন জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, এই প্রতারক চক্রটি ওই এলাকার আরও অনেকের বাড়ি গিয়েছিল। এতে তিনজনের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0