জীবিত মেয়েকে নিজেই মৃত ঘোষণা করে তাঁর শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে আত্মীয়-স্বজনের জন্য ভোজের আয়োজন করেছেন এক বাবা। পরিবারের অমতে প্রেমিককে বিয়ে করায় বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ঘটা করে একমাত্র মেয়ের এই শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করেছেন বাবা সুশান্ত কানু। গতকাল শনিবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হাওড়ার জাগাছার জিআইপি কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এই মাসের শেষ দিকে মেয়ে জয়ন্তী কানুর বিয়ের জন্য ছেলে ঠিক করে রেখেছিলেন ব্যবসায়ী বাবা সুশান্ত কানু। আত্মীয়-স্বজনদের কাছে বিয়ের আমন্ত্রণপত্রও পাঠিয়েছেন তিনি। মেয়ে এলাকায় রাজু সরকার নামের একজনকে পছন্দ করতেন। কিন্তু দরিদ্র বলে রাজুর সঙ্গে বিয়ে দিতে রাজি হয়নি জয়ন্তীর পরিবার। এ কারণে ৩ ফেব্রুয়ারি নিজেই রাজুকে বিয়ে করে ফেলেন জয়ন্তী। বিয়ের দুই দিন আগেই ১৮ বছর পূর্ণ হয় জয়ন্তীর। পরিবারের অমতে একা একা রাজুকে বিয়ে করার ঘটনা মেনে নিতে পারেননি বাবা সুশান্ত। তাই রাগে-ক্ষোভে সেদিনই মেয়েকে মৃত হিসেবে ঘোষণা করেন তিনি। এর ১২ দিন পর গতকাল বাড়ির সামনে হিন্দু শাস্ত্রমতে মাথা ন্যাড়া করে মেয়ের শ্রদ্ধানুষ্ঠান করেন বাবা।

এর আগে নাবালিকা মেয়েকে ফুসলিয়ে নিয়ে বিয়ে করার অভিযোগে রাজুর বিরুদ্ধে জাগাছা থানায় অভিযোগ করেন জয়ন্তীর বাবা। তদন্তে জয়ন্তীর সনদপত্র দেখে পুলিশ নিশ্চিত হয়, জয়ন্তী নাবালিকা নন। তাঁর বয়স ১৮ এবং তিনি স্বেচ্ছায় বিয়ে করেছেন। পরে পুলিশ রাজুকে আটক না করে সেখান থেকে চলে আসে।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন