বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে ২০১২ সালেও টাইম ম্যাগাজিনের প্রভাবশালীর তালিকায় উঠে এসেছিল মমতার নাম। আপসহীন লড়াইয়ের কারণে ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন মমতা। সেই বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের মধ্য দিয়ে প্রথমবার মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন তিনি। সেই থেকে তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে বহাল রয়েছেন। আর এবারের বিধানসভা নির্বাচনে মমতার দল ২৯৪ আসনের মধ্যে ২১৩টি আসন পেয়ে রেকর্ড করেছে।

টাইম ম্যাগাজিনের এবারের তালিকাতেও রয়েছেন মোদি। টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, টাইম ম্যাগাজিনে তাঁর প্রোফাইল লেখা হয়েছে, স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে তিনজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা হলেন জওহরলাল নেহরু, ইন্দিরা গান্ধী ও নরেন্দ্র মোদি। তিনি ভারতের তৃতীয় নেতা যিনি দেশটির রাজনীতিতে এত প্রভাব বিস্তার করেছেন। এ তিনজনের মতো আর কেউ ভারতের রাজনীতিতে এত প্রভাব বিস্তার করতে পারেননি। মোদির প্রোফাইল লিখেছেন সিএনএনের সাংবাদিক ফরিদ জাকারিয়া। তিনি লিখেছেন, ভারতকে ধর্মীয় নিরপেক্ষ অবস্থান থেকে হিন্দু জাতীয়তাবাদের দিকে ঠেলে দিয়েছেন মোদি। গত বছরও মোদি এই তালিকায় ছিলেন।

আর সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আদর পুনাওয়ালা সম্পর্কে টাইম ম্যাগাজিন বলেছে, করোনাভাইরাস মহামারি এখনো শেষ হয়নি। এই মহামারির ইতি টানতে সাহায্য করতে পারবেন তিনি।

গত বছর টাইমের প্রভাশালী ব্যক্তিদের তালিকায় ছিলেন বলিউড অভিনেতা আয়ুষ্মান খুরানা, গুগলের প্রধান নির্বাহী বা সিইও সুন্দর পিচাই, গবেষক রবীন্দ্র গুপ্ত ও দিল্লির শাহিনবাদ সিএএবিরোধী আন্দোলনের নারী মুখ বিলকিস বানু।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন