বিজ্ঞাপন

ডুবে যাওয়া বার্জটি ভারতের তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস করপোরেশনের (ওএনডিসি) মালিকানাধীন। উপকূলীয় এলাকায় খনিজ অনুসন্ধানের কাজে নিয়োজিত কর্মীদের অনুসন্ধানক্ষেত্রগুলোয় নিয়ে যাওয়ার জন্য এসব বার্জ ব্যবহার করা হয়। যখন ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে তখন উপকূলে নোঙর করা এসব বার্জ নোঙর ছিঁড়ে ভেসে যায়।

ভারতীয় নৌবাহিনীর একজন মুখপাত্র বিবিসিকে জানিয়েছেন, সাগরে ভাসতে থাকা ওই বার্জগুলোয় থাকা লোকজনকে উদ্ধার করতে তিনটি যুদ্ধজাহাজ পাঠানো হয়েছে। এসব বার্জের মধ্যে দুটি মুম্বাই উপকূল থেকে ও আরেকটি গুজরাট উপকূল থেকে ভেসে গেছে বলে ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। ওএনজিসি জানিয়েছে, তারাও লোকজনকে উদ্ধার করতে উদ্ধারকারী নৌকা পাঠিয়েছে।

এই তিনটি বার্জের মধ্যে একটিতে কার্গো ছিল। এটি গতকাল সোমবার মুম্বাই উপকূল থেকে ১৪ কিলোমিটার দূরে নোঙর করা ছিল। নৌবাহিনী জানায়, বার্জের সবাই নিরাপদে আছেন। তৃতীয় বার্জটি গুজরাট উপকূল থেকে ৯২ কিলোমিটার দূরে নোঙর করা ছিল। এটিতে ১৯৬ জন ছিল আর রিগে ১০০ জন আটকা পড়ে আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গুজরাটে ঘূর্ণিঝড় থেকে রক্ষায় দুই লাখের বেশি মানুষকে নিরাপদ এলাকায় সরিয়ে নেওয়া হয় এবং কয়েকটি বন্দর ও বিমানবন্দর বন্ধ করে দেওয়া হয়। ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে বৃষ্টির কারণে অনেক গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়েছে। এ কারণে বিভিন্ন এলাকা বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিগত ৩০ বছরের মধ্যে এটি সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন