বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভাগ্যলক্ষ্মী বলেন, ওই ব্যক্তিরা এমনভাবে নিজেদের পরিচয় দিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করার অনুমতি চান যে তাঁর মনে কোনো সন্দেহ আসেনি। তিনি তাঁদের আয়কর কর্মকর্তা হিসেবে বিশ্বাস করেন এবং তাঁদের হাতে আলমারির চাবি তুলে দেন। একপর্যায়ে তাঁরা তিন কেজি স্বর্ণালংকার ও দুই লাখ রুপি নিয়ে বেরিয়ে যান। ভাগ্যলক্ষ্মী বলেন, পরে বুঝতে পেরেছেন তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

তেলেঙ্গানায় এমন প্রতারণার ঘটনা এই প্রথম নয়। চলতি বছরের এপ্রিলে প্রতারণার দায়ে বার্লা লক্ষ্মীনারায়ণ (২২) নামের এক শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করে তেলেঙ্গানার মাঞ্চেরিয়াল জেলা পুলিশ। ওই তরুণ নিজেকে ওই জেলার যুগ্ম কালেক্টর হিসেবে পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করেন। পুলিশ জানিয়েছে, সরকারি চাকরি দেওয়ার কথা বলে লক্ষ্মীনারায়ণ ২৯ ব্যক্তির কাছ থেকে ৮০ লাখ রুপি হাতিয়ে নেন। তিনি এসব অর্থ থেকে দুটি গাড়ি, একটি মোটরসাইকেল ও একটি বাড়িও কেনেন।

এর আগে গত মার্চেই হায়দরাবাদ পুলিশ এ সুধাকর নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ বলছে, ওই ব্যক্তি নিজেকে তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে পরিচয় দিতেন। এ পরিচয়ে সুধাকর সরকারি বাড়ি, পুলিশ বিভাগে চাকরি ও স্বল্পমূল্যে স্বর্ণ দেওয়ার লোভ দেখিয়ে ৮০ থেকে ১০০ জন লোকের কাছ থেকে তিন কোটি রুপি হাতিয়ে নেন।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন